June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
যুদ্ধ বিধ্বস্ত বিশ্বে সামরিক ব্যয়ের রেকর্ড: শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

যুদ্ধ বিধ্বস্ত বিশ্বে সামরিক ব্যয়ের রেকর্ড: শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

যুদ্ধ বিধ্বস্ত বিশ্বে সামরিক ব্যয়ের রেকর্ড: শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

যুদ্ধ বিধ্বস্ত বিশ্বে সামরিক ব্যয়ের রেকর্ড: শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র

যুদ্ধের ধ্বনি বাজছে সারা বিশ্বে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের পর ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে দ্বন্দ্ব। এছাড়া ইসরায়েল ও ইরানের উত্তেজনা বৈশ্বিক প্রেক্ষাপট পাল্টে দিচ্ছে। যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী সামরিক ব্যয়ের দিকে পরিচালিত করেছে যা আগের সমস্ত রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে।

বৈশ্বিক সামরিক ব্যয় গত বছর ৬.৮ শতাংশ বেড়ে রেকর্ড $২.৪ট্রিলিয়ন হয়েছে। শুধু তাই নয়, ২০০৯ সালের পর প্রথমবারের মতো বিশ্বের সব ভূগোলে সামরিক ব্যয় বেড়েছে। সুইডেনের স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (সিপিআরআই) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

বলা হয়, বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের ৩৭ শতাংশ ব্যয় করে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। গত বছর দেশটি ব্যয় করেছে $৯১৬ বিলিয়ন; যা আগের বছরের তুলনায় ২ দশমিক ৩ শতাংশ বেশি। তালিকার পরে রয়েছে চীন ($২৯৬ বিলিয়ন, বিশ্বব্যাপী ব্যয়ের ১২ শতাংশ), রাশিয়া ($১০৯ বিলিয়ন, ৪.৫ শতাংশ), ভারত ($৮৩.৬  বিলিয়ন, ৩.৪ শতাংশ) এবং সৌদি আরব ($৭৫.৮ বিলিয়ন)। ডলার, ৩.১ শতাংশ)।

এছাড়া একই সময়ে যুক্তরাজ্য ৭৪.৯ বিলিয়ন, জার্মানি ৬৬.৮ বিলিয়ন, ইউক্রেন ৬৪.৮ বিলিয়ন, ফ্রান্স ৬১.৩ বিলিয়ন, জাপান ৫০.২ বিলিয়ন, ইসরায়েল ২৭.৫ বিলিয়ন এবং পাকিস্তান ৮.৫ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে।

আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, এশিয়া, ওশেনিয়া, উত্তর এবং দক্ষিণ আমেরিকা – সমস্ত অঞ্চলে সামরিক ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০২৩ সালে সামরিক ব্যয়ের সর্বাধিক শতাংশ বৃদ্ধি ডিআর কঙ্গোতে (১০৫শতাংশ)। দেশটির সেনাবাহিনী বিভিন্ন সশস্ত্র গ্রুপের সঙ্গে লড়াই করছে।

সিপ্রির গবেষক চিয়াও লিয়াং বলেছেন, মেক্সিকো এবং এল সালভাদরে সংগঠিত অপরাধ এবং গ্যাং সহিংসতার বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য সেনাবাহিনী ব্যবহার করা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, ইকুয়েডর ও ব্রাজিলেও একই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে ২০২৩ সালে ইউক্রেনের সামরিক ব্যয় $৬৪.৮ বিলিয়ন ডলার। যা আগের বছরের তুলনায় ৫১  শতাংশ বেশি। যাইহোক, দেশটি ২০২৩ সালে ৩৫  বিলিয়ন ডলার সামরিক সহায়তা পেয়েছে। ফলস্বরূপ, ইউক্রেন গত বছর সামরিক খাতে প্রায় ১০০ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে। একই সময়ে রাশিয়া খরচ করেছে $১০৯ বিলিয়ন।

যাইহোক, জিডিপির শতাংশ হিসাবে, ইউক্রেন তার জিডিপির ৩৭  শতাংশ সামরিক খাতে ব্যয় করে। সেই তুলনায় রাশিয়া খরচ করেছে ৫ দশমিক ৯ শতাংশ। ফলস্বরূপ, যুদ্ধ রাশিয়ার চেয়ে ইউক্রেনের উপর বেশি বোঝা হয়ে উঠেছে।

দক্ষিণ চীন সাগরে উত্তেজনার কারণে ২০২৩ সালে চীন-তাইওয়ান সংকট সামরিক ব্যয় বৃদ্ধি করে। চীন আগের বছরের তুলনায় ৬ শতাংশ বাড়িয়ে ২৯৬  বিলিয়ন ডলার করেছে। এশিয়া ও ওশেনিয়ায় মোট সামরিক ব্যয়ের অর্ধেকই চীনের।

সিপ্রির গবেষক লিয়াং বলেন, পিপলস লিবারেশন আর্মিকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত করতে চীন সামরিক ব্যয় বাড়িয়েছে। এছাড়া চীনের সামরিক ব্যয় বৃদ্ধির কারণে জাপান, তাইওয়ান ও ভারতও তাদের সামরিক বাজেট বাড়িয়েছে বলে তিনি মনে করেন। জাপান ($৫০.২  বিলিয়ন) এবং তাইওয়ান ($১৬.৬  বিলিয়ন) তাদের সামরিক বাজেট ১১ শতাংশ বৃদ্ধি করেছে।

জার্মানির ফ্রাঙ্কফুর্টের পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের একজন রাষ্ট্রবিজ্ঞানী নিকলাস শোয়েরনিগ বলেছেন, “আমরা এমন এক যুগে বাস করছি যখন সামরিক নিরাপত্তা আবার অগ্রাধিকার পাচ্ছে এবং নিরাপত্তার সমস্যাগুলি সামরিক কাঠামোর পরিপ্রেক্ষিতে সংজ্ঞায়িত করা হচ্ছে।” সেই অর্থে, সংখ্যাগুলি সেই মানসিকতার প্রতিফলন মাত্র।”

ইউক্রেন ও সাম্প্রতিক ইরানি হামলা এবং পরে ইরানের ওপর ইসরায়েলের হামলার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজকাল হামলার চেয়ে প্রতিরক্ষা অনেক বেশি ব্যয়বহুল হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, বিশ্ব নতুন যুগে প্রবেশ করেছে; যেখানে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। কারণ বেশিরভাগ অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তিই সেকেলে বা আর বলবৎ নেই।

২০২৩ সালে বৈশ্বিক সামরিক ব্যয় ৬.৮ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। এতে বিশ্বে সামরিক ব্যয়ের পরিমাণ রেকর্ড ২ হাজার ৪৪৩ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে। এত উচ্চ সামরিক ব্যয় বিশ্ব আগে কখনও দেখেনি। সামরিক খাতে সবচেয়ে বেশি ব্যয়কারী দেশগুলোর তালিকায় শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও রাশিয়া।

স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউট (এসআইপিআরআই)  এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

টানা নয় বছর ধরে বৈশ্বিক সামরিক ব্যয় বেড়েছে। বিশ্বের পাঁচটি ভৌগোলিক অঞ্চলে সামরিক ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে।

২০২৩ সালে মার্কিন সামরিক খাতে সবচেয়ে বেশি ব্যয় করে। দেশটি $৯১৬ বিলিয়ন ব্যয় করে, যা বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের ৩৭ শতাংশ।

সামরিক ব্যয়ের দিক থেকে এর পরেই রয়েছে চীন। বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের ১২  শতাংশ চীনের। তারা সামরিক খাতে ২৯৬  বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে।

তৃতীয় স্থানে থাকা রাশিয়া প্রতিরক্ষা খাতে আনুমানিক ১০৯ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে, যা বিশ্বের মোট সামরিক ব্যয়ের ৪.৫ শতাংশ। ইউক্রেন আক্রমণকারী দেশটির সামরিক ব্যয় ২০২২ সালের তুলনায় ২০২৩ সালে ২৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

রাশিয়ার সাথে যুদ্ধরত দেশ ইউক্রেন এক বছরে ৫১ শতাংশ সামরিক ব্যয় বাড়িয়েছে। ২০২৩ সালে, দেশের মোট সরকারি ব্যয়ের ৫৮ শতাংশ ছিল সামরিক খাতে। ৬৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করে অষ্টম অবস্থানে রয়েছে দেশটি।

মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক ব্যয় ৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের ব্যয় ২৪শতাংশ বেড়ে ২৭.৫ বিলিয়ন ডলারে দাঁড়িয়েছে।

 

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X