তেলাপোকা মারার স্প্রের বিষক্রিয়ায় হারাল দুই শিশু প্রাণঃ ঘটনায় মামলা

তেলাপোকা মারার স্প্রের বিষক্রিয়ায় হারাল দুই শিশু প্রাণঃ ঘটনায় মামলা

তেলাপোকা মারার স্প্রের বিষক্রিয়ায় হারাল দুই শিশু প্রাণঃ ঘটনায় মামলা

তেলাপোকা মারার স্প্রের বিষক্রিয়ায় হারাল দুই শিশু প্রাণঃ ঘটনায় মামলা

চোখের কোণে জল সে আবার শুকিয়ে যায়। কপোল ভেজা কান্নাটা আর কাঁদতে পারি না হায়। বসুন্ধরার জায়ান জাহিনের ক্ষেত্রে ঘটে যাওয়া ঘটনাটি অন্তরাত্মাকে সেভাবেই নাড়িয়ে দিয়েছি। যেখানে হৃদয়ের প্রতিটি চেম্বার ভেঙ্গে চুরে টুকরো টুকরো হয়ে গিয়েছে ।

মঙ্গলবার সকালে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, মা শারমিন জাহান কাঁদছেন আর ছেলেদের নাম ধরে ডাকছেন। মাঝেমাঝে তিনি স্তব্ধ হয়ে জান। তিনি জানতে চাইলেন বড় ছেলে সকালের নাস্তা (অ্যাপের মাধ্যমে) অর্ডার করেছেন কি না। বারবার বলছিলেন, কত লক্ষ্মী, কত সুন্দর তার ছেলেরা! ২৮ জুন জায়ানের ১০ বছর পূর্ণ হবে। ছেলেটি প্রতিদিন গুণতে থাকে, কবে আসবে জন্মদিন! মায়ের পাশে শোকাহত বাবা মোবারক হোসেন পাথরের মতো বসে ছিলেন

রাজধানীর বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় তেলাপোকা নিধনের স্প্রে বিষক্রিয়ায় দুই শিশুর মৃত্যুর ঘটনায় ঢাকার ভাটারা থানায় মামলা হয়েছে। সোমবার (৫ জুন) নিহত দুই সন্তানের বাবা মোবারক হোসেন বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

সোমবার রাতে ভাটারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এবিএম আসাদুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পেস্ট কন্ট্রোল নামের একটি কোম্পানির বিরুদ্ধে এই মামলা করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই অভিযুক্তদের শনাক্ত করেছে পুলিশ। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

ওসি আরও বলেন, “দুই শিশুর লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। দুই শিশুর বাবা-মাও বিষক্রিয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তারা সুস্থ হয়ে  আজ হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন।

রবিবার তেলাপোকা নিধনের স্প্রে বিষক্রিয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে অভিযোগ উঠেছে। পরে শিশু দুটিকে এভার কেয়ার হাসপাতালে নিয়ে গেলে শাহিল মোবারত জায়ান (৯) নামে শিশুটি মারা যায়। ওই দিন রাত ১০টায় শাহিলের বড় ভাই শায়েন মোবারত জাহিন (১৫)ও মারা যায়। মা শারমিন জাহান লিমা ও বাবা মোবারক হোসেনও বিষক্রিয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়েন।

দুই সন্তানের খালা। রনক জাহান রোজী অভিযোগ করে বলেন, “পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিসের অদক্ষ কর্মীর কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। আমরা পেস্ট কন্ট্রোল সার্ভিসের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করেও কোন সঠিক উত্তর পাইনি।

তিনি আরও বলেন, শাহিল মোবারত জায়ানকে (৯) রোববার রাতে ঢাকার বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে এবং সোমবার মাগরিব শায়েন মোবারত জাহিনকে (১৫) দাফন করা হয়েছে। তাদের বাবা-মা এখনও অসুস্থ। আমাদের মাথায় যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে। সবার দোয়া কামনা করছি।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X