June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
দ্বি রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়িত হলে হামাস তাদের অস্ত্র ছাড়তে রাজি

দ্বি রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়িত হলে হামাস তাদের অস্ত্র ছাড়তে রাজি

দ্বি রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়িত হলে হামাস তাদের অস্ত্র ছাড়তে রাজি

দ্বি রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়িত হলে হামাস তাদের অস্ত্র ছাড়তে রাজি

গাজা-ভিত্তিক ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের অন্যতম নেতা খলিল আল-হায়া বলেছেন, তার দল ইসরায়েলের সঙ্গে পাঁচ বছর বা তার বেশি সময়ের জন্য যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হতে ইচ্ছুক, যদি একটি দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধান বাস্তবায়িত হয় এবং তা রূপান্তর করতে চায়।  বিভিন্ন  বার্তা সংস্থা  এ খবর প্রকাশ করেছে।

ইস্তাম্বুলে বার্তা সংস্থাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, হামাস গাজা ও পশ্চিম তীরে ঐক্য সরকার গঠনে অংশ নিতে চায়।

তিনি বলেন, ‘দখলদারদের বিরুদ্ধে লড়াই করা সব মানুষের অভিজ্ঞতা হলো, যখন তারা স্বাধীনতা পায়, তাদের অধিকার ও রাষ্ট্র পায়, তখন এই বাহিনী কী করে? তারা রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়, তাদের আত্মরক্ষা বাহিনী তখন জাতীয় সেনাবাহিনীতে পরিণত হয়।’

আল-হায়া আরো বলেন, রাফাতে ইসরায়েলের পরিকল্পিত হামলা হামাসকে ধ্বংস করতে সফল হবে না।তিনি বলেন যে, ইসরায়েলি বাহিনী হামাসের ক্ষমতার ২০%ও ধ্বংস করতে পারেনি, জনবল বা স্থলগত দিক দিয়েও  নয়। তিনি আরও  বলেন, তারা যদি হামাসকে শেষ করতে না পারে, তাহলে সমাধান কী? সমাধান হল সমঝোতায় পৌঁছানো।

গাজায় ছয় মাসেরও বেশি যুদ্ধের সময় ইসরায়েল কর্তৃক আন্তর্জাতিক আইনের অধীনে সুরক্ষিত হাসপাতালগুলি বারবার বোমাবর্ষণ করেছে। হামাস পরিচালিত ভূখণ্ডের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মতে, ইসরায়েলের প্রতিশোধমূলক হামলায় গাজায় কমপক্ষে ৩৪২৬২ জন বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। এদের অধিকাংশই নারী ও শিশু।

ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধের অবসানের পর ‘দুই রাষ্ট্র সমাধান’ নিয়ে আবারও আলোচনা হয়েছে। শনিবার মিশরের কায়রোতে শান্তি সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনে আরব ও ইউরোপীয় নেতারা দ্বি-রাষ্ট্র সমাধানের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেন। এই সংঘাতের একটি স্থিতিশীল এবং নিরাপদ ফলাফল অবশ্যই দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানের ভিত্তিতে হতে হবে, তিনি বলেছিলেন। ইসরায়েল ও হামাসের মধ্যে যুদ্ধ প্রতিরোধের উপায় খুঁজে বের করার জন্য নীতিটি সামনে রাখা হয়েছিল। সম্মেলনে মধ্যপ্রাচ্য, ইউরোপ, এশিয়া, কানাডা ও ব্রাজিলের শীর্ষ কর্মকর্তারা অংশ নেন। তবে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েল উপস্থিত ছিল না।

দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধান মূলত দুটি পৃথক রাষ্ট্র, ফিলিস্তিনি ও ইসরাইল সৃষ্টি। সহজ কথায়, দুটি ভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য দুটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা। অর্থাৎ ইহুদি জনগণের জন্য ইসরাইল এবং ফিলিস্তিনি জনগণের জন্য ফিলিস্তিন। দুই দেশের মানুষ একে অপরের পাশে শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করবে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ফিলিস্তিনি ও ইসরায়েলের মধ্যকার সংঘাতের দুই রাষ্ট্র সমাধানকেই সর্বোত্তম সমাধান বলে মনে করে। ১৯৪৭ সালে, জাতিসংঘ প্যালেস্টাইন এবং ইস্রায়েলের পৃথক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার একটি পরিকল্পনা গ্রহণ করে। অনেক দেশ এটা সমর্থন করে। ক্ষমতায় আসার পর থেকে গাজায় একের পর এক হামলা শুরু করেছে ইসরাইল। দুটি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্য এখন পর্যন্ত অর্জিত হয়নি। দুই দেশ বেশ কিছু বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছাতে পারেনি। যদিও বহু বছর আগে রাষ্ট্রীয়তার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছিল, দ্বি-রাষ্ট্র সমাধান নীতির উত্স মূলত ক্যাম্প ডেভিড অ্যাকর্ডস (শান্তি চুক্তি)। মিশর ও ইসরাইল ১৯৭৮ সালে এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করে।

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন সীমান্ত এখনো সমাধান হয়নি। উভয় পক্ষই জেরুজালেম শহরকে তাদের রাজধানী হিসেবে দাবি করে। ইসরাইল জোরপূর্বক ফিলিস্তিনের জমি দখল করে অবৈধ বসতি স্থাপন করছে। আর এটাই দ্বি-রাষ্ট্র সমাধানে বড় বাধা। তবে, এটি সমাধান হলে, ১৯৬৭ সীমানা রেখা চুক্তি স্বীকৃত হবে। জেরুজালেম ইসরায়েল ও ফিলিস্তিনের মধ্যে ভাগ হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, গতকাল গণ  কবরের সন্ধানের পর খলিল আলহায়া দ্বিরাষ্ট্রীয়  সমাধানের কথা জোরালোভাবে উল্লেখ করেন। হ্যাঁ সেখানে যা ঘটেছিল তা হল,

বুধবার হোয়াইট হাউস বলেছে যে ইসরায়েলি অবরোধে ধ্বংস হওয়া গাজার দুটি হাসপাতালে গণকবর আবিষ্কারের পর তারা ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে “উত্তর” চায়।

গাজার সিভিল ডিফেন্স এজেন্সি জানিয়েছে, ২৪এপ্রিল স্বাস্থ্যকর্মীরা খান ইউনিসের নাসের হাসপাতালে ইসরায়েলি বাহিনীর হাতে নিহত প্রায় ৩৪০০ ভুক্তভোগীর মৃতদেহ এবং গণকবর খুঁজে পেয়েছেন।গাজা শহরের আল-শিফা হাসপাতালের মাঠে দুটি গণকবরে প্রায় ৩০টি মৃতদেহ পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে।

জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান সাংবাদিকদের বলেন। আমরা এটি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে এবং স্বচ্ছভাবে তদন্ত দেখতে চাই।আমরা উত্তর চাই,। গণকবরের আবিষ্কার ইউরোপীয় ইউনিয়ন দ্বারা সমর্থিত জাতিসংঘের দ্বারা পরিস্থিতির একটি স্বাধীন তদন্তের আহ্বানকে উস্কে দিচ্ছে।ইসরায়েলি সেনাবাহিনীর মুখপাত্র মেজর নাদাভ শোশানি বলেছেন, নাসেরের কবর “কয়েক মাস আগে গাজাবাসীরা খুঁড়েছিল।”

ইসরায়েলি সেনাবাহিনী স্বীকার করেছে যে জিম্মিদের সন্ধানকারী সৈন্যরা “ফিলিস্তিনি কবর থেকে মৃতদেহ” পরীক্ষা করেছে। তবে এ হত্যাকাণ্ডের পেছনে ইসরায়েলি সেনাদের হাত রয়েছে এমন অভিযোগের বিষয়ে তিনি সরাসরি কিছু বলেননি।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X