June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
গণকবরে লাশ খুঁজছেন সন্তান হারানো ফিলিস্তিনি মায়েরা

গণকবরে লাশ খুঁজছেন সন্তান হারানো ফিলিস্তিনি মায়েরা

গণকবরে লাশ খুঁজছেন সন্তান হারানো ফিলিস্তিনি মায়েরা

গণকবরে লাশ খুঁজছেন সন্তান হারানো ফিলিস্তিনি মায়েরা

খান ইউনিস, গাজা উপত্যকার একজন ফিলিস্তিনি ভিডিও সাংবাদিকরা সম্প্রতি  ইসরায়েলি বাহিনী প্রত্যাহারের পর নাসের হাসপাতালে আবিষ্কৃত গণকবর নিয়ে একটি তথ্যচিত্র তৈরি করছেন। ইতিমধ্যে সেখানে তিন শতাধিক লাশ পাওয়া গেছে। সোমবার এক মহিলার একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। এতে দেখা যাচ্ছে একজন ফিলিস্তিনি মা তার সন্তানের লাশ ধরে আছেন। তার এই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে।  এখানে দৃশ্যের বর্ণনা দিয়েছেন।

খান ইউনিসের নাসের হাসপাতালে শত শত মা আসছেন। তারা তাদের সন্তানদের খুঁজছে, এক লাশ থেকে অন্য লাশে ছুটছে, প্রতিটি লাশ ছেদ করছে।

তারা চোখ-হাত দিয়ে লাশগুলো পরীক্ষা করছেন। তারা লাশের পরা জামাকাপড়, ট্রাউজার, জুতা পরীক্ষা করছেন, শিশুর জিনিসপত্র মিলেছে কিনা! গণকবর থেকে উদ্ধার হওয়া তিন শতাধিক লাশের মধ্যে প্রিয়জনকে পাওয়া সহজ নয়।

মায়েদের একটা সহজ প্রমাণ দরকার। তাদের সন্তানদের শনাক্ত করার কোনো প্রমাণ। কিন্তু কাজটা সহজ নয়। লাশের বেশিরভাগ শনাক্তকরণ হারিয়ে গেছে। বেশিরভাগ লাশই গলে গেছে, চেনা যাচ্ছে না।

ইসরাইল তিন মাস খান ইউনিস অবরোধ করে। নাসের হাসপাতাল গাজার দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং দক্ষিণাঞ্চলে চিকিৎসা সেবার ‘মেরুদণ্ড’। হামলা থেকে বাঁচতে ১০ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি এখানে আশ্রয় নিয়েছে।

ইসরায়েলি বাহিনী জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারিতে প্রায়শই হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে এটিকে সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে, কর্মীদের গ্রেপ্তার করে এবং হাজার হাজার গৃহহীন মানুষকে উচ্ছেদ করে।

চলতি মাসের শুরুতে ইসরায়েলি সেনারা প্রত্যাহার করে। এরপর শুরু হয় লাশের সন্ধান। হাসপাতালের আশপাশে শতাধিক লাশ পাওয়া গেছে।

প্রথম দিনে গণকবর আবিষ্কৃত হয়, ৭০ টি লাশ পাওয়া যায়। পরদিন আরও ৭০ টি লাশ পাওয়া যায়। মৃত ফিলিস্তিনিদের মাটির নিচে কবর দেওয়া হয়। অনেকে গাছের নিচে, কেউ হাসপাতালের ওয়ার্ডে পড়ে আছে।

মঙ্গলবার উদ্ধারকারীরা আরও ডজনখানেক মৃতদেহ খুঁজে পেয়েছেন। ফলে মৃতদেহের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩১০।

মৃতের গন্ধে বাতাস ভারি।

তারা যত খুঁড়ে ততই লাশ বের হয়। অনেক জায়গা থেকে লাশ পাওয়া যাচ্ছে, যা কল্পনাও করা যায় না। অনেক সময় উদ্ধারকারীরা শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ পাচ্ছেন। নাকি লাশ এতটাই পচন ধরেছে যে চেনার উপায় নেই।

গাজা সরকারের মিডিয়া অফিসের মতে, অনেক লাশ শিরোচ্ছেদ অবস্থায় পাওয়া গেছে। অনেকের চামড়া কেটে টুকরো টুকরো করা হয়েছে। নিহতদের মধ্যে শিশু, বৃদ্ধ নারী, যুবক-সবাই রয়েছে।

উদ্ধারকর্মীরা জানিয়েছেন, তারা এমন মৃতদেহও পেয়েছেন যাদের হাত পিঠে বাঁধা ছিল। জাতিসংঘের মানবাধিকার কার্যালয় বলছে, এগুলো “আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন এবং আন্তর্জাতিক মানবিক আইনের গুরুতর লঙ্ঘন।”

ইসরায়েল ফিলিস্তিনিদের লাশ দাফনের কথা অস্বীকার করেছে। তারা পরিবর্তে দাবি করেছে যে তারা ইসরায়েলি বন্দীদের সন্ধানে ‘সম্মান সহকারে’ মৃতদেহগুলি তুলেছিল।

নাসের হাসপাতালে অনেকেই কাঁদছেন, অনেকে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। এমন দৃশ্য প্রকাশ করার ভাষা কারো কাছে নেই।

সাংবাদিকরা বলেন,  প্রিয়জনের মৃতদেহ প্রাপ্তির অনুভূতি বর্ণনাতীত। মায়েরা কিভাবে তাদের মৃত সন্তানদের চাদরে ঢেকে কবরে নিয়ে যায়, তা প্রকাশ করা যায় না।

আমরা সাংবাদিক হিসেবে সম্পূর্ণ নীরবতার সাথে প্রতিটি দৃশ্য ধারণ করছি। আমরা কথা বলি না ছবি তুলতে গিয়ে কেঁদেছিলাম। আমাদের হাত এত বেশি কাঁপে যে আমাদের ক্যামেরা ফোকাস হারিয়ে ফেলে। কিন্তু আমরা আবার শুরু করি, তারপর আবার করি।

দীর্ঘ অবরোধের পর ইসরায়েলি স্থল সৈন্যরা প্রত্যাহার করার পর ফিলিস্তিনি উদ্ধারকারী গোষ্ঠী এবং বেশ কয়েকটি জাতিসংঘের পর্যবেক্ষণ মিশনও এই মাসের শুরুতে গাজা শহরের শিফা হাসপাতালের প্রাঙ্গণে একাধিক গণকবরের সন্ধানের কথা জানিয়েছে। ডক্টরস উইদাউট বর্ডারস-এর জন্য কাজ করা চিকিৎসকরা বর্ণনা করেছেন যে কীভাবে ইসরায়েলি বাহিনী জানুয়ারির শেষ দিকে নাসের হাসপাতালে হামলা চালায়, এক মাস পরে প্রত্যাহার করার আগে, সুবিধাটি সম্পূর্ণরূপে ধ্বংস করে দেয়।

জাতিসংঘের অধিকার প্রধান সাম্প্রতিক দিনগুলোতে উত্তর, মধ্য ও দক্ষিণ গাজায় ইসরাইলি বিমান হামলার ক্রমবর্ধমান সংখ্যার নিন্দা করেছেন। “উত্তরটি এখনও ভয়ানক,” এলাকাটি পরিদর্শনের সময় জাতিসংঘের মানবিক বিষয়ক সমন্বয়ের অফিসের ওলগা চেরেভকো বলেন, “আরো খাবার আসছে, কিন্তু এটি কেনার জন্য কোন টাকা নেই।” স্বাস্থ্যসেবা সুবিধাগুলি ধ্বংস করা হয়েছে। পানির কূপ চালানোর জন্য কোন জ্বালানী নেই, এবং স্যানিটেশনও   একটি বিশাল সমস্যা হয়ে পড়েছে  ।’

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X