May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
৩৭৫ বছর চেষ্টার পর পৃথিবীর অষ্টম জিল্যান্ডিয়া মহাদেশের সন্ধান

৩৭৫ বছর চেষ্টার পর পৃথিবীর অষ্টম জিল্যান্ডিয়া মহাদেশের সন্ধান

৩৭৫ বছর চেষ্টার পর পৃথিবীর অষ্টম জিল্যান্ডিয়া মহাদেশের সন্ধান

৩৭৫ বছর চেষ্টার পর পৃথিবীর অষ্টম জিল্যান্ডিয়া মহাদেশের সন্ধান

সাধারণ জ্ঞানের কিছু প্রশ্ন থাকত এই পৃথিবীতে মহাদেশের সংখ্যা কত? সবাই সহজেই এর উত্তর দিয়েছিল৭ টি। এশিয়া, ইউরোপ, আফ্রিকা, উত্তর আমেরিকা, দক্ষিণ আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া এবং অ্যান্টার্কটিকা। কিন্তু এই উত্তর যদি এখন বলা হয়, একটু সমস্যা আছে। কারণ এই ৭টি মহাদেশ ছাড়াও আমরা জানি, এই পৃথিবীতে আরও একটি মহাদেশ রয়েছে।

এটি আবিষ্কার করতে অনুসন্ধানকারীদের ৩৭৫ বছর লেগেছে। দক্ষিণ-পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরের তলদেশে মহাদেশটি ৪ বছর আগে আবিষ্কৃত হয়েছিল। কিন্তু কোনো মানচিত্রে বা কোথাও সেই নতুন মহাদেশের কোনো নাম নেই। অনেক ইউরোপীয় অভিযাত্রী ভেবেছিলেন যে ল্যাটিন আমেরিকা ছাড়িয়ে আরও দক্ষিণ-পশ্চিমে গেলে একটি নতুন মহাদেশ আবিষ্কৃত হবে। সাধারণ মানুষ অবশ্য সেই ধারণাকে পাগলের প্রলাপ বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। এমনই একজন ‘পাগল’ অভিযাত্রী ছিলেন আবেল তাসমান। সেই  ডাচ তাসমান একদিন সেই নতুন মহাদেশের সন্ধানে যাত্রা করেছিলেন । অর্থাৎ ১৬৪২ সালে । তাসমান মোটা গোঁফ নিয়ে বলেছিলেন যে তিনি বিজয়ী হয়ে ফিরবেন।

জিল্যান্ডিয়ার খোঁজ করতে গিয়ে তিনি  অস্ট্রেলিয়া ও নিউজিল্যান্ডের সন্ধান পেয়ে গেলেন।

তাসমান অবশ্য নতুন মহাদেশ আবিষ্কার করেছে। লাতিন আমেরিকা পেরিয়ে একটু এগোলেই দেখা গেল সাগরে। কিন্তু সেই আদিম জনগোষ্ঠী অধ্যুষিত ভূমিতে পা রাখা ইউরোপীয়দের পক্ষে সহজ ছিল না। বেশ কিছু যুদ্ধ জয়ের পর অবশেষে শুরু হলো ‘সভ্যতার জয়যাত্রা’। কিন্তু না, তাসমানের আবিষ্কৃত মহাদেশ আমাদের অজানা নয়। এটি ওশেনিয়া মহাদেশ। অস্ট্রেলিয়া মানে বেশিরভাগ মানুষ এটা জানে।

তবে অস্ট্রেলিয়ার আবিষ্কারে অভিযান থামেনি। কারণ অনেকেই এখনও বিশ্বাস করেন যে তাসমান যে মহাদেশটি খুঁজছিলেন তা খুঁজে পাননি। অবশেষে, ২০১৭ সালে, সেই অজানা মহাদেশের অবস্থান পাওয়া গেছে। নিউজিল্যান্ডের একদল অভিযাত্রী মহাদেশটি আবিষ্কার করেন। মহাদেশের প্রায় ৯৩ থেকে ৯৪ শতাংশই  প্রশান্ত মহাসাগরে নিমজ্জিত। নিউজিল্যান্ড এই মহাদেশের একমাত্র অংশ যা জলের উপরে। বলা যায়, এই মহাদেশের পর্বতশৃঙ্গ। বাকি সব পানির নিচে। তাই বিজ্ঞানীরা এই ‘মহাদেশের’ নাম দিয়েছেন জিল্যান্ডিয়া। এটির আয়তন প্রায় ভারতীয় উপমহাদেশের সমান।

অভিযাত্রীরা সেই আবিষ্কারের প্রমাণও পেশ করেছেন। যদিও  এখনো পৃথিবীর মানচিত্রে এই মহাদেশের অস্তিত্ব নেই। আজকাল মানচিত্র আঁকতে জাহাজ নিয়ে সমুদ্র পাড়ি দিতে হয় না। সবই স্যাটেলাইট ছবিতে ধরা পড়েছে। তাহলে কি পুরো মহাদেশের অস্তিত্ব ধরা পড়েনি?

বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞই দাবি করেন যে এর প্রধান কারণ এটিকে মহাদেশ বলা হলেও এর অবস্থান সমুদ্রের নিচে। প্রায় ২ কিমি উপরে একটি জল টেবিল আছে। আর অভিযাত্রীরা এর নাম দেন জিল্যান্ডিয়া। এবং এর আয়তন ৪.৯ মিলিয়ন বর্গ কিলোমিটার। কিন্তু এখানে অনেকেই প্রশ্ন করতে পারেন, সমুদ্রের নিচের ভূমিকে কি মহাদেশ বলা হয় ? এর পক্ষে অবশ্য নিউজিল্যান্ডের ভূতাত্ত্বিকরা বেশ কিছু সংজ্ঞা ও নথি উপস্থাপন করেছেন যাতে প্রমাণিত হয় যে যেহেতু ভূমি সমুদ্রতলের থেকে অনেক উঁচু, তাই একে মহাদেশ হিসেবে মেনে নিতে হবে। যাইহোক, ৩৭৫ বছর অনুসন্ধানের পরে, অনেক মানুষ এখনও যে মহাদেশটি পাওয়া গেছে তা  মানতে  ইচ্ছুক নয়।

১১ জন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ভূতত্ত্ববিদ একটি দীর্ঘ গবেষণা পরিচালনা করেছেন এবং জিল্যান্ডিয়াকে একটি মহাদেশ হিসাবে বিবেচনা করার জন্য তাদের ফলাফল উপস্থাপন করেছেন। ভূতত্ত্ববিদরা প্রমাণ পেয়েছেন যে এই সমস্ত গুণাবলী জিল্যান্ডিয়াতে বিদ্যমান। বিজ্ঞানীরা জিল্যান্ডিয়ার কিছু মাটি ও পাথরের নমুনা নিয়ে গবেষণা করেছেন। এর মাটির সাথে মহাদেশীয় ভূখণ্ডের আশ্চর্যজনক মিল রয়েছে। কিন্তু সমুদ্রের তলদেশের কাঠামোর সাথে কোন মিল খুঁজে পাওয়া যায় না। তাই এটা বলা যেতে পারে যে জিল্যান্ডিয়ার একটি মহাদেশ হওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

অন্যদিকে, একদল গবেষক বলছেন যে জিল্যান্ডিয়াকে এখনও একটি বৃহৎ ও সমন্বিত এলাকা হিসেবে বিবেচনা করা যায় না। এর মানে, জিল্যান্ডিয়াকে মহাদেশ হিসেবে দাবি করা যায় না। যাইহোক, সম্প্রতি স্যাটেলাইট প্রযুক্তি এবং সমুদ্রের তল মাধ্যাকর্ষণ মানচিত্র ব্যবহার করে, জিল্যান্ডিয়াকে একটি সমন্বিত এলাকা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। সমুদ্রের প্রায় ৩২৮০ ফুট নীচে এই নতুন মহাদেশের সীমানা দেখার পর থেকে, ভূতাত্ত্বিকরা দৃঢ় মতামত ব্যক্ত করেছেন যে জিল্যান্ডিয়াকে এর উপর ভিত্তি করে একটি মহাদেশ হিসাবে গ্রহণ করা যেতে পারে।

তবে এর পেছনে রাজনৈতিক কারণকে দায়ী করছেন নিউজিল্যান্ডের গবেষকরা। প্রকৃতপক্ষে, এই মহাদেশটি স্বীকৃত হলে, নিউজিল্যান্ডকে আর ওশেনিয়ার অংশ বলা যাবে না। কারণ একই ভূমির কিছু অংশ সমুদ্রের উপরে উঠে গেছে। আর তার নাম নিউজিল্যান্ড। ফলে নিউজিল্যান্ডের সীমানা যেমন অনেক বেড়ে যাবে, তেমনি তার রাজনৈতিক ক্ষমতাও বাড়বে। আর এসব কারণে একটি গোটা মহাদেশের খবর চাপা পড়ে গেছে। রাজনৈতিক চাপ অব্যাহত থাকবে। কিন্তু এই আবিষ্কারের গল্প সত্যিই রোমাঞ্চকর।

আরও পড়ুন

আমেরিকা: উপনিবেশ থেকে স্বাধীন আধুনিক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

জিল্যান্ডিয়ার ৯৩ থেকে ৯৪ শতাংশ পানির নিচে হলেও তবে এই মহাদেশটি বিশ্বের মানচিত্রে উঠে এলে বিশাল সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে। এবার জেনে নেওয়া যাক এই মহাদেশ আবিষ্কারের গল্প-

‘জিল্যান্ডিয়া’ শব্দটি প্রথম ব্যবহার করেছিলেন ১৯৯৫ সালে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ভূ-পদার্থবিদ্যার অধ্যাপক ব্রুস লুয়েনডিক, বার্কলে। বিজ্ঞানীরা ১৯৬০ সালে সমুদ্রের নীচে তেলের মজুত অনুসন্ধান করার সময় এই মহাদেশের অস্তিত্ব আবিষ্কার করেছিলেন। এরপর জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে আরও ব্যাপক গবেষণা কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়। এই সময়ে, কিছু তথ্য বিজ্ঞানীদের হাতে এসেছে যার ভিত্তিতে তারা জিল্যান্ডিয়া সম্পর্কে নিশ্চিত।

যদিও  তামসান শেষ পর্যন্ত জিল্যান্ডিয়া সনাক্ত করতে ব্যর্থ হয়, কিন্তু নিউজিল্যান্ডের একদল অভিযাত্রী এটি আবিষ্কার করে।

নিউজিল্যান্ডের জিএনএস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের গবেষকরা এই মহাদেশ সম্পর্কে অনেক অজানা তথ্য নিয়ে দীর্ঘ ছয় বছর গবেষণা চালিয়েছেন। এই মহাদেশটির অবস্থান সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে প্রায় ১২ হাজার ২১৭ ফুট উপরে। এই মহাদেশটি অনেক সমৃদ্ধ। এর মহাসাগরে  প্রচুর পরিমাণে জীবাশ্ম জ্বালানী রয়েছে, যা পৃথিবীর দীর্ঘমেয়াদী ভবিষ্যতের শক্তির চাহিদা মেটাতে সক্ষম। এর মূল্য হবে বিলিয়ন ডলারেরও বেশি। শুধু তাই নয়, ভূতাত্ত্বিকভাবে এই জিল্যান্ডিয়া মহাদেশ হবে অস্ট্রেলিয়া এবং অ্যান্টার্কটিকার থেকে সম্পূর্ণ আলাদা।

এটি অস্ট্রেলিয়া মহাদেশ থেকে আট কোটি ৫০ লাখ বছর আগে। পরবর্তীতে ১৩ কোটি বছর আগে জিল্যান্ডিয়া অস্ট্রেলিয়া মহাদেশ ও অ্যান্টার্কটিকা থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়।  বিজ্ঞানীদের মতে, মহাদেশটি সম্ভবত ২৩ কোটি বছর আগে সম্পূর্ণভাবে নিমজ্জিত হয়েছিল। আজ, মহাদেশের বেশিরভাগ অংশ প্রশান্ত মহাসাগরের নীচে নিমজ্জিত। এটি বিশ্বের বৃহত্তম মহাদেশীয় ল্যান্ডমাস বা উপমহাদেশ যার আয়তন প্রায় ৪৯,২০,০০০  কিমি।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X