May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
বিশ্বে ব্যাপক আলোচিত হ্যাকার গ্রুপ

বিশ্বে ব্যাপক আলোচিত হ্যাকার গ্রুপ

বিশ্বে ব্যাপক আলোচিত হ্যাকার গ্রুপ

বিশ্বে ব্যাপক আলোচিত হ্যাকার গ্রুপ

হ্যাকিং কি?

হ্যাকিং হল একটি কম্পিউটার সিস্টেমের দুর্বলতা খুঁজে বের করা এবং সেই দুর্বলতার সুযোগ নিয়ে কম্পিউটার সিস্টেমের অনুমতি ছাড়া অ্যাক্সেস লাভ করা বা সিস্টেমে প্রবেশ করে ব্যক্তিগত তথ্য চুরি করা।

অর্থাৎ হ্যাকিং হল কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেমে প্রবেশ, অন্যের তথ্য বা ফাইল অনুমতি ছাড়া নিয়ন্ত্রণ করার কৌশল।

একদিন সকালে হঠাৎ ঘুম ভেঙে দেখেন, পাসওয়ার্ড ও ইমেইল ঠিকঠাক সেট করার পরও ফেসবুক বা অন্য যে কোনো ধরণের  অ্যাকাউন্টে লগইন হচ্ছে না। তখন বুঝতে দেরি হয়নি, আপনার সেই অ্যাকাউন্ট হ্যাকারের হাতে।

কম্পিউটার নেটওয়ার্ক সিস্টেম ব্যবহার করে, আপনার নেট অ্যাকাউন্ট চুরি এবং অন্যের দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়,এই হল মূলত হ্যাকিং ।

হ্যাকার কারা?

এসব অনধিকার চর্চা যারা করে বা অন্যের একাউন্টের পাসওয়ার্ড কৌশলে চুরি করে নেয়  বা হ্যাকিং করে তাদেরকে হ্যাকার বলা হয়।

কোন কোন ক্ষেত্রে এসব হ্যাকার রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে।  আবার কোন কোন ক্ষেত্রে প্রাইভেট বা ব্যক্তিগতভাবেও হয়ে থাকে।  সেগুলো নিয়ে আজকের আলোচনা চলছে।

একজন ব্যক্তি সহজে ইচ্ছামত হ্যাকিং করতে পারে না। দীর্ঘমেয়াদী প্রচেষ্টা এবং মেধার ব্যবহারের মাধ্যমে হ্যাকিংয়ের দক্ষতা অর্জন করা যায়। হ্যাকিং একটি প্রযুক্তি নির্ভর প্রক্রিয়া। এই হ্যাকিং অনেক উপায়ে করা হয়। তথ্য বা ফাইল, সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্ট, ইমেল, নেটওয়ার্ক, টেলিকমিউনিকেশন সিস্টেম এবং বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ডিভাইস, যা বৈধ অনুমতি ছাড়াই ব্যবহার বা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। হ্যাকাররা কম্পিউটার প্রোগ্রামিং ব্যবহার করে এই কাজগুলো করে থাকে। হ্যাকিং সব দেশেই অপরাধ। যদিও অবৈধ, হ্যাকার হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে সহজেই তার প্রযুক্তিগত দক্ষতা এবং বড় রকমের মেধার প্রদর্শন করতে পারে।

হ্যাকিংয়ের একটি সংক্ষিপ্ত ইতিহাস

হ্যাকিং নিয়ে আলোচনা শুরু হয় ১৯৬০ সালের দিকে। ১৯৬৩ সালের দিকে, ম্যাসাচুসেটস বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা তাদের গবেষণাপত্রে হ্যাকিং শব্দটি নিয়ে আসে। তখন হ্যাকিং খুবই সহজ ছিলনা । কারণ তখন প্রযুক্তি এতটা উন্নত ছিল না। তখন  হ্যাকিং দিন দিন আরও সংবেদনশীল হয়ে উঠছে। ১৯৬৯ সালে যখন বিশ্ব ইন্টারনেটের জগতে প্রবেশ করে তখন হ্যাকারদের তৎপরতা বেড়ে যায়। ১৯৭৮ সালের দিকে, লোকেরা হ্যাকিং সম্পর্কে ভালভাবে জানতে শুরু করে। এরপর সময়ের সাথে সাথে এর জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে।

তবে বহির্বিশ্বে হ্যাকিং শুধু ফেসবুকেই বা সোশ্যাল মিডিয়াতেই সীমাবদ্ধ নয়। বরং ফেসবুক বা সোশ্যাল মিডিয়া হ্যাকারদের কাতারে ফেলতে নারাজ অনেকেই। আপনি যদি এর কারণ জানতে চান তবে  এখন বিশ্বের কয়েকটি বড় হ্যাকার গ্রুপ এবং তাদের কার্যকলাপ নিয়ে আলোচনা করছি। চলুন দেখে নেওয়া যাক বিশ্বের সেরা  কতিপয় (স্বীকৃত) হ্যাকার গ্রুপ।

Anonymous

আমরা সবাই সম্ভবত এই হ্যাকার গ্রুপ সম্পর্কে কমবেশি শুনেছি। ধারণা করা হচ্ছে তারাই সম্ভবত বিশ্বের সবচেয়ে বড় সংগঠিত হ্যাকার গ্রুপ। তাদের সদস্যরা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। তাদের উৎপত্তি ২০০৩ সালে। তাদের সংগঠন এমন যে অপারেশনের সময় কেউ ধরা পড়লেও তাদের অভিযান অব্যাহত থাকে। এবং তাতে তাদের  বিন্দুমাত্র  ক্ষতি হয় না.

এ পর্যন্ত গ্রুপটি বেশ সফলতার সাথে বিভিন্ন অনলাইন ও অফলাইন কার্যক্রম পরিচালনা করেছে। তাদের বেশিরভাগ অপারেশন হল শিশু পর্নোগ্রাফি বিরোধী, অ্যান্টি-চার্চ অফ সায়েন্টোলজি ইত্যাদি। মজার বিষয় হল এত সংগঠনের পরেও তাদের কোন নির্দিষ্ট নেতা নেই। এর মানে তারা কারো আদেশের অধীনে কাজ করে না, এবং এটিই  তাদেরকে  অন্যান্য গ্রুপ থেকে আলাদা করে। যদি কেউ নেতৃত্ব দেওয়ার চেষ্টা করে, তারা খুব সুন্দরভাবে তাকে দলত্যাগে বাধ্য করে।

Tailored Access Operations, NSA

এটি একটি মার্কিন সরকারী সংস্থা। TAO এর শক্তি অকল্পনীয়। স্নোডেনের দেওয়া তথ্য অনুসারে, আমরা এখন জানি যে এই সংস্থার প্রায় ৬০০ জন কর্মচারী রয়েছে যারা মেরিল্যান্ডের প্রধান NSA ভবনে কাজ করে।

হাওয়াই, জর্জিয়া, টেক্সাস এবং ডেনভারেও তাদের শাখা রয়েছে। তাদের কাছে QuantumSquirrel নামে একটি প্রযুক্তি রয়েছে, যার মাধ্যমে তারা ইন্টারনেটের যেকোনো স্থান থেকে যেকোনো ব্যক্তির পরিচয় চুরি করতে পারে এবং সেই অনুযায়ী কাজ করতে পারে। শুধু তাই নয়। এমনকি তারা বিশ্বজুড়ে প্রযুক্তি সংস্থাগুলির উপর তাদের নিজস্ব সুরক্ষা বজায় রাখার জন্য চাপ দেয়, যাতে তারা ভবিষ্যতে সেই ডিভাইসগুলির সুরক্ষায় অ্যাক্সেস পেতে পারে। আর সেই ডিভাইসের  ভিতরের  সমস্ত অডিও এবং ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করতে পারে।

Elderwood Group and 20 others Chinese APTs

চাইনিজ হ্যাকার সার্কেল বিভিন্ন হ্যাকার গ্রুপ নিয়ে গঠিত যেমন Elderwood Group, Axiom, Unit 61398, Comment Crew, Putter Panda, Hidden Lynx ইত্যাদি। এরা চীনা সরকার নিজেই অর্থায়ন করে। রিপোর্ট অনুযায়ী, তাদের সবচেয়ে বড় হামলা হয়েছিল ২০১০ সালে। যাকে ‘অপারেশন অরোরা’ বলা হয়। সেই অপারেশনের পরে, গুগল ঘোষণা করেছিল যে তারা হ্যাক হয়েছে। এছাড়াও এই হ্যাকার গ্রুপটি বিভিন্ন প্রতিরক্ষা সংস্থা, অস্ত্র শিল্প, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ইত্যাদির ওয়েবসাইটও হ্যাক করে থাকে ।

APT28

এই হ্যাকার গ্রুপ অনেক উন্নত। যা তথ্য পাওয়া গেছে তা থেকে জানা যায় তারা রাশিয়ান। তাদের অর্থায়ন রাশিয়ান সরকার নিজেই করে। রাশিয়ান সরকার তাদের টার্গেট দেয় এবং তারা সে অনুযায়ী কাজ করে। এই গ্রুপটি খুব সাধারণ হ্যাকিং পদ্ধতি ব্যবহার করে। তারা এ পর্যন্ত ন্যাটো, পোলিশ সরকারের ওয়েবসাইট, জর্জিয়ার মন্ত্রণালয় এবং OSCE হ্যাক করেছে।

Dragonfly

এই হ্যাকার গ্রুপ আরেকটি রাষ্ট্রীয় স্পনসরড হ্যাকার গ্রুপ।  বিভিন্ন  তথ্য থেকে জানা যায়  সম্ভবত এর পেছনে রয়েছে রাশিয়ার সরকার। তারা সাধারণত ইউরোপ এবং আমেরিকার বৈদ্যুতিক গ্রিড, এনার্জি  শিল্প এবং বিভিন্ন নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থাকে লক্ষ্য করে। তারা তাদের তাদের spearphishing এবং watering hole আক্রমণের জন্য সবচেয়ে বেশি পরিচিত। তারা বিভিন্ন শিল্পের ওয়েবসাইটে নিরাপত্তা লঙ্ঘন তৈরি করে এবং সময় পেলে তাদের দখল করে নেয়।

Tarh Andishan ও Ajax

নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলা করে ইরান সরকারের সিদ্ধান্তে অনেক কিছুই হয়েছে! একটি শক্তিশালী সাইবার বাহিনী এখন প্রয়োজন। এর পরিপ্রেক্ষিতে তারা দুটি গ্রুপ তৈরি করে। প্রথমটির নাম ‘তারহ আন্দিশান’। এটি সম্পূর্ণভাবে সরকারের অর্থায়নে পরিচালিত হয়। আরেকটি হল ‘Ajax’। ইরানের বিভিন্ন হ্যাকারদের সাথে চুক্তি করে এটি গঠিত হয়েছে । কিন্তু সরকার এর সঙ্গে সরাসরি যুক্ত নয়। Ajax এর সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য মিশন হল ‘অপারেশন স্যাফরন রোজ’। এই মিশনে, তারা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা শিল্পের বিভিন্ন ওয়েবসাইট দখল করে নেয় এবং বিভিন্ন শ্রেণীবদ্ধ তথ্য মুছে ফেলার চেষ্টা করে। সেদিক থেকে তারহ আন্দিশানের গল্প সম্পূর্ণ আলাদা। তাদের কাজ মূলত শত্রু দেশের বিভিন্ন বিমানবন্দর, গ্যাস স্টেশন ইত্যাদির নিরাপত্তা ব্যবস্থা হ্যাক করা।

Syrian Electronic Army

এই হ্যাকার গ্রুপটি সিরিয়ার হ্যাকারদের নিয়ে গঠিত এবং ইরান ও হিজবুল্লাহর সাথেও তাদের ভালো সংযোগ রয়েছে। ইতিমধ্যেই তারা বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে তাদের শক্তি প্রদর্শন করেছে। তাদের প্রধান টার্গেট বিভিন্ন পশ্চিমা মিডিয়া। যে কারো অবস্থান জানার জন্য তারা বিভিন্ন ম্যালওয়্যার ব্যবহার করে।

Morpho

এই হ্যাকার গ্রুপটি ২০১১ সাল থেকে অনেক হাই প্রোফাইল ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি এবং বিনিয়োগ কোম্পানির ওয়েবসাইট সফলভাবে হ্যাক করছে। অন্যান্য হ্যাকিং গ্রুপের মতো তাদের পেছনে কোনো সরকারি সহায়তা নেই, তবে প্রযুক্তির দিক থেকে তারা অন্যদের থেকে পিছিয়ে নেই। তাদের হিট লিস্ট থেকে মাইক্রোসফট, অ্যাপল, ফেসবুক ও টুইটারও বাদ পড়েনি।

এই দলটি অন্য সকলের চেয়ে ছোট কিন্তু সবচেয়ে আকর্ষণীয়। তাদের বিভিন্ন  স্ফলতার  মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল মাল্টিপ্ল্যাটফর্ম ম্যালওয়্যার, ডকুমেন্টেড কোড, বিটকয়েন ইত্যাদি। তারা সবাই ইংরেজি ভাষাভাষী এবং তারা  তাদের ট্র্যাক লুকিয়ে রাখতে খুবি পারদর্শী।

Chaos Computer Club

এই গোষ্ঠীটি সম্ভবত তালিকার একমাত্র গ্রুপ যা একটি নীতি মেনে চলে এবং হ্যাকার গ্রুপগুলির মধ্যে এটিই সবচেয়ে পুরানো। জার্মান হ্যাকারদের একটি গ্রুপ ১৯৮১ সালের দিকে এই গ্রুপটি প্রতিষ্ঠা লাভ  করে। আজ, এই গ্রুপটি সারা ছড়িয়ে পড়েছে এবং বিশাল আকার ধারণ করেছে। এর অধিকাংশ সদস্য জার্মানভাষী। তারা মাঝে মাঝে তাদের বিভিন্ন নীতিগত কর্মকান্ডের জন্য শিরোনাম হয়। যেখানে তাদের প্রশংসাও  করা হয়।

Bureau 121

পুরানো প্রযুক্তি থাকা সত্ত্বেও হ্যাকিংয়ে উত্তর কোরিয়া সরকারের আগ্রহ বেশ আকর্ষণীয়। প্রতি বছর সরকার নতুন দল গঠনের জন্য স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ইত্যাদি থেকে মেধাবী ছাত্রদের নিয়োগ করে। সামরিক একাডেমি থেকেও হ্যাকারদের নিয়োগ করা হয়। তাদের প্রধান টার্গেট দক্ষিণ কোরিয়া। কিন্তু সুযোগ পেলে অন্য দেশেও হ্যাকিং  হামলা চালায়। যেমন কয়েকদিন আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে যে টাকা চুরি হয়েছে, এগুলোও তাদের পেছনের শক্তি বলে মনে করা হয়।

আরও পড়তে পারেন

অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপস যেভাবে চুপিসারে আমাদের গোপন তথ্য চুরি করে

তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে এলো তথ্য ফাঁসের মূল কারণ, অদক্ষ অপর্যাপ্ত জনবলই মূল কারণ

বেকার আর নারী এই দুই শ্রেণী ইন্টারনেট ব্যবহার করেন বেশি

পাকিস্তানি নারীর প্রেমে ভারতীয় বিজ্ঞানী, ছিনিয়ে নিলেন ক্ষেপণাস্ত্রের তথ্য 

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X