June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
শ্রম ইস্যুতে নতুন বিল পাস করলো ইইউ পার্লামেন্টঃ বাংলাদেশের জন্য নতুন চিন্তা

শ্রম ইস্যুতে নতুন বিল পাস করলো ইইউ পার্লামেন্টঃ বাংলাদেশের জন্য নতুন চিন্তা

শ্রম ইস্যুতে নতুন বিল পাস করলো ইইউ পার্লামেন্টঃ বাংলাদেশের জন্য নতুন চিন্তা

শ্রম ইস্যুতে নতুন বিল পাস করলো ইইউ পার্লামেন্টঃ বাংলাদেশের জন্য নতুন চিন্তা

ইউরোপীয় পার্লামেন্টের আইন প্রণয়ন ক্ষমতা আছে যা ইউরোপীয় কাউন্সিল বা কমিশনের নেই, তবে “আইন প্রণয়ন” করার বিধিবদ্ধ ক্ষমতাও নেই। ইউরোপীয় সংসদ ইউরোপীয় ইউনিয়নের অন্যান্য সকল প্রতিষ্ঠানের উপর অগ্রাধিকার পায়। ইউরোপীয় সংসদ ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন করে। এবং সম্পূর্ণভাবে কমিশনের নিয়োগ অনুমোদন বা অস্বীকৃতি জানাতে পারে। এমনকি কমিশনকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করতে পারে।

শ্রমিকদের সার্বজনীন অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ইউরোপীয় নীতি নির্ধারকরা গত কয়েক বছর ধরে আলোচনায় বসেছেন। আর সে লক্ষ্যেই আইনের দিকে ঝুঁকে পড়েন নীতিনির্ধারকরা। বুধবার (২৪এপ্রিল) ইইউ পার্লামেন্টে আইনটি পাস হয়েছে।৩৭৪জন পক্ষে, ১৯ জন বিরত এবং ২৩৫  জন বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন।

ডিউ ডিলিজেন্স অ্যাক্ট অনুসারে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের কোম্পানিগুলি বিদেশে ব্যবসা করছে যা কমপক্ষে ৪৫০  মিলিয়ন ইউরোর বার্ষিক বিক্রয় এবং ১০০০ এর বেশি কর্মচারী নতুন আইনের অধীন হবে। সেইসব কর্পোরেটদের কর্মী ও পরিবেশগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায়, আপনাকে জরিমানা দিতে হবে।

বাংলাদেশে ইইউ প্রতিনিধিদলের প্রধান চার্লস হোয়াইটলি বলেন, ইউরোপীয় মালিকানাধীন বা অন্যান্য দেশীয় কোম্পানি যাদের ১০০০-এর বেশি কর্মী এবং বার্ষিক বিক্রয় কমপক্ষে ৪৫০ মিলিয়ন ইউরো, তারা ইউরোপে ব্যবসা করতে চাইলে মানবাধিকার এবং পরিবেশগত সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। ভবিষ্যতে বাজার।

তবে শ্রমিক সমস্যা নিয়ে উদ্বিগ্ন না হয়ে শ্রমিক পরিস্থিতি উন্নয়নে জাতীয় রোডম্যাপ বাস্তবায়নে মনোযোগ দিতে সরকার ও প্রতিষ্ঠানের মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, শিল্প কারখানায় পরিবেশগত ঝুঁকি এবং শ্রমিকদের সামগ্রিক অধিকারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিগত বছরগুলোতে অগ্রগতি করেছে। এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। তবে কোনো ইইউ প্রতিষ্ঠান দুটি নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হলে বার্ষিক লাভের ৫ শতাংশ জরিমানা গুনতে হবে।

চার্লস বলেন, নতুন আইন পাস হলেও সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনার পর তা কার্যকর হতে আরও দুই বছর সময় লাগবে।

গত কয়েক বছর ধরে ইউরোপীয় নীতি নির্ধারকরা শ্রমিকদের সার্বিক অধিকার ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার বিষয়ে আলোচনা করে আসছেন। আর সে লক্ষ্যেই আইনের দিকে ঝুঁকে পড়েন নীতিনির্ধারকরা।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) ইইউ পার্লামেন্টে আইনটি পাস হয়েছে। ৩৭৪  জন পক্ষে, 19 জন বিরত এবং 235 জন বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন।

ডিউ ডিলিজেন্স অ্যাক্ট অনুসারে, ইউরোপীয় ইউনিয়নের কোম্পানিগুলি বিদেশে ব্যবসা করছে যা কমপক্ষে ৪৫০  মিলিয়ন ইউরোর বার্ষিক বিক্রয় এবং ১০০০  এর বেশি কর্মচারী নতুন আইনের অধীন হবে। এই কর্পোরেটদের শ্রমিক ও পরিবেশগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায়, জরিমানা গুনতে  হবে।

বাংলাদেশে ইইউ প্রতিনিধিদলের প্রধান চার্লস হোয়াইটলি বলেন, ইউরোপীয় মালিকানাধীন বা অন্যান্য দেশীয় কোম্পানি যাদের ১০০০-এর বেশি কর্মী এবং বার্ষিক বিক্রয় কমপক্ষে ৪৫০ মিলিয়ন ইউরো, তারা ইউরোপে ব্যবসা করতে চাইলে মানবাধিকার এবং পরিবেশগত সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। এবং এই ব্যাপারে অঙ্গীকারবদ্ধ হতে হবে এবং চুক্তির আওতায় স্বাক্ষর করতে হবে বাংলাদেশকে।

তবে শ্রমিক সমস্যা নিয়ে উদ্বিগ্ন না হয়ে শ্রমিক পরিস্থিতি উন্নয়নে জাতীয় রোডম্যাপ বাস্তবায়নে মনোযোগ দিতে সরকার ও প্রতিষ্ঠানের মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, শিল্প কারখানায় পরিবেশগত ঝুঁকি এবং শ্রমিকদের সামগ্রিক অধিকারের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিগত বছরগুলোতে অগ্রগতি করেছে। এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। তবে ইইউ কোম্পানি দুটি নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হলে বার্ষিক মুনাফার ৫ শতাংশ জরিমানা করতে হবে।

চার্লস বলেন, নতুন আইন পাস হলেও সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে আলোচনার পর তা কার্যকর হতে আরও দুই বছর সময় লাগবে।

উল্লেখ্য,  ইইউ পার্লামেন্ট বা  ইউরোপীয় সংসদ

ব্রাসেলস শহরে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট ভবন

ব্রাসেলসে ইউরোপীয় পার্লামেন্ট ভবনে পার্লামেন্টের বিভিন্ন দাপ্তরিক ভাষায়

ইউরোপীয় সংসদ (ইপি হিসাবে সংক্ষেপিত) হল একটি সংসদীয় ইউরোপীয় প্রতিষ্ঠান যা সরাসরি জনপ্রিয় ভোটে নির্বাচিত সদস্যদের নিয়ে গঠিত। ইউরোপীয় কমিশন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন কাউন্সিলের সাথে একসাথে, এটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের আইন প্রণেতার ভূমিকা পালন করে। সংসদ ১৫১ সদস্য নিয়ে গঠিত। এটি ভারতের সংসদের পরে বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত আইনসভা। এটি বিশ্বের বৃহত্তম আন্তঃরাজ্য গণতান্ত্রিক প্রতিনিধি আইনসভাও ( এটির প্রায় ৩৮০মিলিয়ন সম্ভাব্য ভোটার আছে )।

১৯৭৯ সাল থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশের জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে প্রতি পাঁচ বছর পর সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে আসছে। যাইহোক, প্রতিটি নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতি হ্রাস পাচ্ছে এবং ১৯৯৯ সাল থেকে ৫০% এর নিচে রয়েছে। ২০১৪ সালের সবচেয়ে সাম্প্রতিক নির্বাচনে, ভোটারের উপস্থিতি ছিল ৪২.৫৪%

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X