June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
ভারতের ইতিহাসে প্রথম মন্ত্রিসভায় নেই কোনো মুসলিম সদস্য

ভারতের ইতিহাসে প্রথম মন্ত্রিসভায় নেই কোনো মুসলিম সদস্য

ভারতের ইতিহাসে প্রথম মন্ত্রিসভায় নেই কোনো মুসলিম সদস্য

ভারতের ইতিহাসে প্রথম মন্ত্রিসভায় নেই কোনো মুসলিম সদস্য

ভারতের ইতিহাসে  এই প্রথম কোনো মুসলিম সদস্য মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেননি। অর্থাৎ ভারতের কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে গঠিত সরকারে কোনো মুসলিম সদস্য নেই। মোদির আগের মন্ত্রিসভায় মুখতার আব্বাস নকভি নামে একজন মুসলিম মন্ত্রী ছিলেন। তিনি রাজ্যসভায় নির্বাচিত হওয়ার পর, মোদির দ্বিতীয় মূল  মন্ত্রিসভাতেও কোনো মুসলিম মন্ত্রী ছিল না। এবারও মোদির আগের সরকারের ধারাবাহিকতা বজায় থাকল।

ভারতে অনুষ্ঠিত প্রায় প্রতিটি জাতীয় নির্বাচনের পর প্রতিবারই লোকসভার একজন মুসলিম সদস্যকে ভারতীয় মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এটি সম্ভবত প্রথম বাধা। এর আগে ২০১৪ সালে, যখন মোদি প্রথম প্রধানমন্ত্রী হন, নাজমা হেপতুল্লা মুসলিম সদস্য হিসাবে শপথ নেন এবং সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী হন। ২০১৯ সালে, নকভি মোদির দ্বিতীয় মেয়াদে সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী হন।

এই বছর মোদির মন্ত্রিসভায় কোনও মুসলিম প্রতিনিধিত্ব না থাকার একটি কারণ হল ১৮ তম লোকসভায় বিজেপির এনডিএ জোট থেকে কোনও মুসলিম প্রার্থী নির্বাচিত হননি৷ এই বছরের লোকসভা নির্বাচনে নির্বাচিত ২৪ জন মুসলিম এমপির মধ্যে ২১ জন ভারত জোটের। বাকিদের মধ্যে ২ জন আসাদউদ্দিন ওয়াইসির অল ইন্ডিয়া মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমীনের এবং ২ জন স্বতন্ত্র।

এর আগে, ২০০৪ এবং ২০০৯  মন্ত্রিসভায় যথাক্রমে চার এবং পাঁচজন মুসলিম সদস্য ছিল। এমনকি ১৯৯৯ সালে অটল বিহারী বাজপেয়ী সরকারের মন্ত্রিসভায় দুজন মুসলিম ছিলেন। তারা হলেন শাহনওয়াজ হোসেন ও ওমর আবদুল্লাহ। এর আগে, নকভি ১৯৯৮ সালে বাজপেয়ীর নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভায় প্রতিমন্ত্রীও ছিলেন।

ভারতের সংসদীয় দলের নেতা নির্বাচিত হওয়ার পর, নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন যে জোটের আদর্শ ও নীতি হল ‘সর্বপন্থা সমভাব’, যার অর্থ সব ধর্ম এক। বৈষম্য করবেন না। সবাইকে নিয়ে হাঁটুন। এই জোট সরকার এই নীতিতে বিশ্বাসী থাকবে। আগামী দিনে এগোবে এভাবেই।

গত শুক্রবার পুরনো সংসদের সেন্ট্রাল হলে দেওয়া আশ্বাসের ৪৮ ঘণ্টা পর রোববার সন্ধ্যায় ৭২ সদস্যের মন্ত্রিসভায় একজনও মুসলিমকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের পাঁচজন মন্ত্রী থাকলেও জোটের শরিক দল থেকে কোনো মুসলিমকে মন্ত্রী নিয়োগ করা হয়নি। এই প্রথম কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে মুসলিমদের বাদ দেওয়া হল।

নরেন্দ্র মোদির প্রথম মন্ত্রিসভা এতটা মুসলিমমুক্ত ছিল না। নাজমা হেপতুল্লা ২০১৪ সালে লোকসভায় একটি আসনে জয়ী হয়ে মোদির মন্ত্রিসভা হিসেবে শপথ নেন। মোদি তাঁকে সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রকের দায়িত্ব দেন। এমনকি ২০১৯  সালে, মন্ত্রিসভার প্রথম শপথ মুসলিমমুক্ত ছিল না। মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন বিজেপির রাজ্যসভার সদস্য মুশতাক আব্বাস নকভি। নাজমার ছেড়ে দেওয়া সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রকের দায়িত্বও তাঁকে দেওয়া হয়েছিল।

মুশতাক আব্বাস নকভির রাজ্যসভার মেয়াদ ৬জুলাই, ২০২২-এ শেষ হয়৷ তারপর থেকে বিজেপি তাকে সদস্য করেনি৷ এরপর থেকে মোদির মন্ত্রিসভার দরজাও মুসলমানদের জন্য বন্ধ হয়ে যায়।

মোদির বিজেপিতে মুসলমানদের কোনো স্থান নেই এটা সবারই জানা। এই নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি যেভাবে বিভিন্ন জনসভায় কংগ্রেস ও মুসলমানদের কথা তুলে ধরেছেন তা সবারই জানা। কংগ্রেসের নির্বাচনী ইশতেহারে মুসলমানদের ছায়া দেখেছেন তিনি। তিনি আরও বলেন, কংগ্রেস অন্যের সম্পত্তি নিয়ে মুসলমানদের মধ্যে বণ্টন করবে। তিনি যখন এই কথাগুলো বলেছিলেন, তখন তার ধারণা ছিল না যে তার দল নিরঙ্কুশ আধিপত্য থেকে ৩২ ধাপ দূরে থেমে যাবে। সরকার গঠনে বাধ্য হয়ে তাকে এখন ‘সকল উপায়ে সমতার’ কথা বলতে হচ্ছে। তবে একজন মুসলিমকেও মন্ত্রিসভায় স্থান দেওয়া হয়নি।

আরও পড়তে

এতটা নোংরা কথা ভারতের কোনো প্রধানমন্ত্রী আগে বলেননি: মোদীর দিকে ইঙ্গিত করলেন মনমোহন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X