June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
জোন্সের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ওপেনিং ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের হাই-ভোল্টেজ ম্যাচ জয়

জোন্সের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ওপেনিং ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের হাই-ভোল্টেজ ম্যাচ জয়

জোন্সের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ওপেনিং ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের হাই-ভোল্টেজ ম্যাচ জয়

জোন্সের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে ওপেনিং ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের হাই-ভোল্টেজ ম্যাচ জয়

শুরুর দিনে শুরুর ম্যাচে যুক্তরাষ্ট্রের দুর্দান্ত ও আনন্দময় পারফরমেন্সে পুরো যুক্তরাষ্ট্রের সকল বাসিন্দা অভিভূত। সাথে সাথে টাইম-টিভিরর পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রের এই ধারাবাহিক সাফল্যকে শুভেচ্ছা ও অভিবাদন জানিয়ে আরম্ভ করছি আজকের লেখা।

যুক্তরাষ্ট্র তার প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচ খেলতে নামার আগেই  সাহসী  বাংলাদেশের সাথে  ক্রিকেট খেলার কথা গতকাল সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র দলের সহ-অধিনায়ক অ্যারন জোনস।

আজ ডালাসে কানাডার বিপক্ষে সাহসী ক্রিকেট খেলে ৭ উইকেটের জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করেছে স্বাগতিক টিম ইউএসএ। সংক্ষিপ্ত সংস্করণ ক্রিকেটে কানাডার ১৯৫ রানের টার্গেট কোনোভাবেই কম ছিল না। তবে ঘরের মাঠে তাদের সমর্থকদের সমর্থনে দারুণ ম্যাচ খেলে উপহার দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। জোন্সের বিধ্বংসী ইনিংসে যুক্তরাষ্ট্র ১৪ বল হাতেই লক্ষ্য অতিক্রম করে।

এতে অবশ্য মিত্র দেশগুলোর মধ্যে বিশ্বকাপে রান তাড়া করার রেকর্ড গড়েছে যুক্তরাষ্ট্র। টি-টোয়েন্টিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আগের সর্বোচ্চ রান তাড়া করার রেকর্ড ছিল ১৬৯। এবং নেদারল্যান্ডসের জয় ছিল বিশ্বকাপে অংশীদার দেশগুলির দ্বারা তাড়া করা সর্বোচ্চ লক্ষ্য যেখানে ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ডাচরা আয়ারল্যান্ডের ১৯০রানের বিপরীতে ১৯৩ রান করেছিল।

তবে শুরুটা ভালো হয়নি যুক্তরাষ্ট্রের। বড় লক্ষ্য তাড়া করতে ওপেনার স্টিভেন টেলর যখন উল্টো দলের রান বুক খোলার আগেই ড্রেসিংরুমে ঢুকে পড়েন ওপেনার স্টিভেন টেলর। আরেক ওপেনার ও দলের অধিনায়ক মনক প্যাটেলও দলকে খুব বেশি দূর নিয়ে যেতে পারেননি। দলীয় ৪২ রানে ১৬ রান নিয়ে ফেরেন তিনি।

দুই ওপেনারকে হারানোর পর অবশ্য খেলার মোড় ঘুরিয়ে দেন আন্দ্রিস গুস ও জোন্সের ব্যাটিং। দলকে জেতাতে ছক্কা মেরে প্রতিপক্ষ বোলারদের ওপর আক্রমণ শুরু করেছিলেন জোন্স। গতকাল নিজের কথা প্রমাণ করতে মাঠে ছক্কার বৃষ্টি শুরু করেন তিনি। তৃতীয় উইকেটে মাত্র ৫৮ বলে ১৩১ রানের জুটি গড়ে কানাডা থেকে জয় ছিনিয়ে নেয় এই জুটি।

দারুণ এই জুটিতে ৭৬ রান করেন জোন্স। তাও মাত্র ৩৩ বলে। তার আগে ২২ বলে ফিফটির রেকর্ড গড়েছিলেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হয়ে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড। শেষ পর্যন্ত ম্যাচে ৪০ বলে ৯৪ রান করে অপরাজিত থাকেন যুক্তরাষ্ট্রের সহ-অধিনায়ক। ১০টি ছক্কায় ৪টি চারের সাহায্যে ৬৪ রানের ইনিংস সাজান তিনি। দলের হয়ে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ছক্কার মালিক এখন তিনি। জোন্স পরবর্তীতে তার ম্যাচ জেতানো ইনিংসের জন্য ম্যান অফ দ্যা ম্যাচের পুরস্কার পান।

দুর্দান্ত ব্যাটসম্যান গুস অবশ্য জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেননি। দলের জয়ের জন্য ২২ রানের প্রয়োজন হলে তিনি 65 রান করে আউট হন। ৪৬ বলে ড্যাসিং ব্যাটিং না হলেও ৭ চার ও ৩ ছক্কার ইনিংস না খেললে এমন জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করতে পারত না যুক্তরাষ্ট্র। তবে ফিল্ডারদেরও অবদান ছিল। কানাডার ফিল্ডাররা বেশ কয়েকটি ক্যাচ মিস করেন।

এর আগে ডালাসে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেটে ১৯৪ রান করে কানাডা। নবনীত ধালিওয়াল (৬৫) এবং নিকোলাস কার্টনের (৫১) অর্ধশতক কানাডাকে দুই শতাধিক রানের কাছাকাছি এনেছিল, কিন্তু জোন্সের বিধ্বংসী ইনিংসের কাছে তাদের পরাজিত হতে হয়েছিল।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী দিনে একটি হাই ভোল্টেজ ম্যাচ দেখা গেছে। অ্যারন জোন্সের ছক্কায়, গুস ও জোন্সের ব্যাটিং কানাডার বড় টার্গেটও সহজেই অতিক্রম করে ফেলে যুক্তরাষ্ট্র।

ডালাসের গ্র্যান্ড প্রেইরি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় রোববার সকালে কানাডাকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বিশ্বকাপে স্বাগতিকদের একজন প্রতিবেশী দেশটির দেওয়া ১৯৫ রানের টার্গেট ১৪ বল হাতে রেখেই পূরণ করে।

এর চেয়ে বেশি রান তাড়া করে মাত্র দুটি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতেছে। ২০১৬ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ইংল্যান্ডের ২৩০ এবং ২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার ২০৬ রান।

এটি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়। গত এপ্রিলে ১৬৯ রানের টার্গেটে কানাডার বিপক্ষে ৪ উইকেটে জিতেছিল তারা।

বিশ্বকাপে যুক্তরাষ্ট্রের এই ঐতিহাসিক জয়ের নায়ক জোন্স। চারে নেমে মাত্র ৪০ বলে অপরাজিত ৯৪ রান করেন এই ব্যাটসম্যান। দশটি ছক্কা মেরেছেন। দেশের জন্য একটি রেকর্ড। এছাড়া চারটি বাউন্ডারি দিয়ে ইনিংস সাজিয়েছেন তিনি। ছক্কা মেরে দলের জয় নিশ্চিত করেন তিনি।

সপ্তম ওভারে দ্বিতীয় উইকেটের পতনের পর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি যুক্তরাষ্ট্রকে। তৃতীয় উইকেটে যেকোনো উইকেটে ১৩১ রানের রেকর্ড জুটি গড়েন জোনস ও অ্যান্ড্রিস গাস। গুজ ৪৬ বলে ৭ চার ও ৩ ছক্কায় ৬৫ ​​রান করে ফিরে গেলেও জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন জোন্স।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে জোনসের চেয়ে এক ইনিংসে বেশি ছক্কা শুধু ক্রিস গেইলের। ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১১ টি ছক্কা।

সারাংশ স্কোর:

কানাডা: ২০ ওভারে ১৯৪/৫ (জনসন ২৩, ধালিওয়াল ৬১, পারগাত ৫, কার্টন ৫১, মোভা ৩২*, দিলপ্রিত ১১, হেলিগার ১*; আলি ৪-০-৪১-১, নেত্রাভালকার ২-০-১৬-০, হারমিত ৪-০-২৭-১, জাসদিপ ৩-০-২৪-০, শাকউইক ৩-০-৩৪-০, টেইলর ১-০-১৫-০, অ্যান্ডারসন ৩-০-২৯-১)

যুক্তরাষ্ট্র: ১৭.৪ ওভারে ১৯৭/৩ (টেইলর ০, মোনাঙ্ক ১৬, হাউস ৬৫, জোন্স ৯৪*, অ্যান্ডারসন ৩*; সানা ৪-০-৩৪-১, গর্ডন ৩-০-৪৪-০, হেলিগার ৩-০-১৯-১, সাদ ৪-০-৪২-০, নিখিল ২.৪-০-৪১-১, পারগাত ১-০-১৫-০)

ফলাফল: USA ৭ উইকেটে জয়ী

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: অ্যারন জোন্স

আরো পড়ুন

বিশ্বকাপের আগে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে লজ্জাজনক হার বাংলাদেশের

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X