June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
ট্রাম্প আবার প্রেসিডেন্ট হলে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ হবে: হাঙ্গেরি

ট্রাম্প আবার প্রেসিডেন্ট হলে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ হবে: হাঙ্গেরি

ট্রাম্প আবার প্রেসিডেন্ট হলে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ হবে: হাঙ্গেরি

ট্রাম্প আবার প্রেসিডেন্ট হলে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ হবে: হাঙ্গেরি

যুদ্ধ কবে শেষ হবে কেউ জানে না। সাম্প্রতিক মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কিকে এই প্রশ্ন করা হয়েছিল। তার পাল্টা প্রশ্ন, ছিল ‘পুতিনের পরিবর্তে আমাকে এই প্রশ্ন করছেন কেন? পুতিনকে জিজ্ঞাসা করুন কেন তিনি এখনও যাচ্ছেন।

ডোনাল্ড ট্রাম্প পুনরায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে তিনি রুশ আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ইউক্রেনের লড়াইয়ে অর্থায়ন করবেন না। রোববার হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান এ মন্তব্য করেন।

অরবান ২০২৪ সালের মার্কিন নির্বাচনে তার দীর্ঘদিনের মিত্রকে প্রকাশ্যে সমর্থন করছেন। ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের সঙ্গে বৈঠকের পর রক্ষণশীল প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে তিনি (ট্রাম্প) এক পয়সাও দেবেন না।

এই কারণেই যুদ্ধ শেষ হবে।’ সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট পুনরায় নির্বাচিত হলে ‘২৪ ঘণ্টার মধ্যে’ যুদ্ধ শেষ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলেননি তিনি।

“এটা স্পষ্ট যে ইউক্রেন তার নিজের দুই পায়ে দাঁড়াতে পারে না,অরবান হাঙ্গেরির এম ১ টিভি চ্যানেলকে বলেছেন।

যদি আমেরিকানরা ইউরোপীয়দের সাথে অর্থ এবং অস্ত্র ভাগ না করে তবে যুদ্ধ শেষ। যদি আমেরিকানরা অর্থ প্রদান না করে তবে ইউরোপীয়রা একা যুদ্ধের অর্থায়ন করতে অক্ষম। তাহলে যুদ্ধ শেষ হবে।

তিনি আরও বলেছিলেন যে কীভাবে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ করা যায় সে সম্পর্কে ট্রাম্পের একটি “খুব বিস্তারিত পরিকল্পনা” রয়েছে।

তবে এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানাননি তিনি।

এদিকে, ট্রাম্প অরবানের টিভি সাক্ষাৎকারে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য করেননি। তবে সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মার-এ-লাগো প্রাসাদে শুক্রবারের বৈঠকে তার অতিথির প্রশংসা করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, ‘ভিক্টর অরবানের চেয়ে ভাল, স্মার্ট বা ভাল নেতা আর কেউ নেই। তিনি দুর্দান্ত।

এদিকে, অরবান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে দেখা করেননি। নভেম্বরের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বাইডেন ট্রাম্পের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হবেন। বর্তমান নেতৃত্বকে আমন্ত্রণ না জানিয়ে সাবেক প্রতিপক্ষের সঙ্গে দেখা করা একজন সফররত বিদেশী নেতার পক্ষে খুবই অস্বাভাবিক।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রাখার জন্য ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকে হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী বারবার ইইউ নেতাদের সমালোচনার মুখে পড়েছেন। অরবান তার প্রতিবেশী ইউক্রেনে অস্ত্র পাঠানোর বিষয়টিও অস্বীকার করেছে। তিনি বারবার বলেছেন যে কিয়েভ পারমাণবিক অস্ত্রধারী রাশিয়ার বিরুদ্ধে জিততে পারবে না।

ইইউ নেতারাও ক্রমবর্ধমানভাবে উদ্বিগ্ন যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসাবে ট্রাম্পের দ্বিতীয় মেয়াদ ইউক্রেন এবং ন্যাটো সামরিক জোটকে দেশটির সামরিক ও আর্থিক সহায়তা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করবে। রিপাবলিকান বিরোধীরা মার্কিন কংগ্রেসে ইউক্রেনের জন্য $৬০ বিলিয়ন সামরিক সহায়তা সহ $৯৫  বিলিয়ন বিদেশী সহায়তা বিল স্থগিত করেছে।

রাশিয়ার বাহিনীও সম্প্রতি পূর্ব ইউক্রেনে সাফল্য অর্জন করেছে। কারণ কিয়েভ গোলাবারুদের সংকটের মধ্যে রয়েছে। রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যেতে ইউক্রেন যুক্তরাষ্ট্র ও অন্যান্য পশ্চিমা মিত্রদের অস্ত্রের ওপর নির্ভরশীল।

২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২২-এ, পুতিন ইউক্রেনকে “অসামরিকীকরণ এবং ডি-নাজিফাই” করার জন্য একটি “বিশেষ সামরিক অভিযান” ঘোষণা করেছিলেন, দাবি করেছিলেন যে রাশিয়ার দেশটি দখল করার কোন পরিকল্পনা নেই। পরে সেই রুশ আগ্রাসন আন্তর্জাতিকভাবে নিন্দা করা হয়; অনেক দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে এবং বিদ্যমান নিষেধাজ্ঞা বাড়িয়েছে।

প্রচণ্ড প্রতিরোধের মুখে, রাশিয়া এপ্রিলের শুরুতে কিয়েভ দখলের প্রচেষ্টা পরিত্যাগ করে। আগস্ট থেকে, ইউক্রেনীয় বাহিনী উত্তর-পূর্ব এবং দক্ষিণের অঞ্চলগুলি পুনরুদ্ধার করতে শুরু করে। সেপ্টেম্বরের শেষের দিকে, রাশিয়া চারটি আংশিক-অধিকৃত অঞ্চলকে সংযুক্ত করার ঘোষণা দেয়, যা আন্তর্জাতিকভাবে নিন্দা করা হয়েছিল। রাশিয়া শীতকাল কাটিয়েছে ডনবাসে অনিয়মিত আক্রমণ পরিচালনা করে। ২০২৩ সালের বসন্তে, রাশিয়া আরেকটি ইউক্রেনীয় পাল্টা আক্রমণের আগে অবস্থানে খনন করেছিল, যা উল্লেখযোগ্য স্থল অর্জন করতে ব্যর্থ হয়েছিল।

যুদ্ধের ফলে শরণার্থী সংকট এবং কয়েক হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

দুই বছর ধরে চলতে থাকা এই ভয়ঙ্কর সংঘাতে উভয় দেশেরই ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিভিন্ন সমীক্ষা বলছে, ইউক্রেনে ১০ হাজারেরও বেশি বেসামরিক মানুষ মারা গেছে। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী, প্রতি তিনজন ইউক্রেনের একজন বাস্তুচ্যুত। দেশের মধ্যে ৫মিলিয়ন বাস্তুচ্যুত এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ৬০ মিলিয়নেরও বেশি শরণার্থী। ইউক্রেনের এক চতুর্থাংশ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করে। দেশের কৃষি ব্যবস্থা ধ্বংস হয়ে গেছে। বেশিরভাগ ভূমি রাশিয়ান ল্যান্ড মাইন দ্বারা আবৃত। ফলে কৃষি জমি পরিণত হয়েছে মরণফাঁদে।

গোটা বিশ্ব সংঘাতের ফলে আক্রান্ত। জ্বালানি তেল ও খাদ্য রপ্তানি ব্যাহত হচ্ছে, যার প্রভাব পড়ছে সব খাতে। একদিকে খাদ্যপণ্যের দাম বেড়েছে, অন্যদিকে দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। বিরোধ নিষ্পত্তির জন্য একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও সফল হয়নি। রাশিয়া পাল্টা আক্রমণ জোরদার করেছে। ইউক্রেনও পাশ্চাত্য অস্ত্র দিয়ে পাল্টা জবাব দিয়ে যাচ্ছে ।

কিয়েভকে সামরিক সহায়তা প্রদান নিয়ে পশ্চিমা শক্তিগুলোর মধ্যে সাম্প্রতিক দ্বন্দ্ব পুতিনকে আরও আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। সম্প্রতি পুতিনের বাহিনী ইউক্রেনের গুরুত্বপূর্ণ শহর ‘আভদিভকা’ দখলের কথা জানিয়েছে। শিগগিরই যুদ্ধ শেষ হওয়ার সম্ভাবনা দেখছেন না বিশেষজ্ঞরা। বরং যুদ্ধের পরিধি বাড়বে এবং তা দীর্ঘায়িত হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

এই ভয়ঙ্কর যুদ্ধ এখন তৃতীয় বছরে পদার্পণ করছে, সত্যিই কি কোনো শেষ আছে?

আরও পড়ুন

ক্ষমতা পেলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ থামিয়ে দেব: ট্রাম্প

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X