আওয়ামী লীগ নেতা কর্তৃক পিটার হাসকে মারধরের হুমকির বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা বলল

আওয়ামী লীগ নেতা কর্তৃক পিটার হাসকে মারধরের হুমকির বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা বলল

আওয়ামী লীগ নেতা কর্তৃক পিটার হাসকে মারধরের হুমকির বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা বলল

আওয়ামী লীগ নেতা কর্তৃক পিটার হাসকে মারধরের হুমকির বিষয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যা বলল

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বেদান্ত প্যাটেল জানান, চট্টগ্রাম চাম্বল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মুজিবুল হক চৌধুরীর ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে মারধরের হুমকির পরিপ্রেক্ষিতে তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে চান। এটি একটি বড় পরিসরের বিষয়। তা হল -আমি মনে করি এরকম সহিংস বক্তব্য (ভায়োলেন্ট রেটোরিক) গভীরভাবে অসহযোগিতামূলক (আনহেল্পফুল)। আমরা আশা করবো কূটনীতিকদের বিষয়ে ভিয়েনা কনভেনশনের অধীনে নিরাপত্তা দিতে যেকোনো দেশের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আমাদের তো কূটনীতিক ও স্থাপনার নিরাপত্তার গুরুত্ব সর্বাধিক। বুধবার মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ব্রিফিংয়ে সাংবাদিক মুশফিকুল ফজল আনসারির এক প্রশ্নের জবাবে বেদান্ত প্যাটেল এসব কথা বলেন। মুশফিক তাকে প্রশ্ন করেন যে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন দলের একজন স্থানীয় নেতা একটি সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনে ভূমিকা পালন করায় ঢাকায় রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে মারধরের হুমকি দিয়েছেন। কূটনীতিক এবং কর্মীদের মুখোমুখি হুমকির প্রতিক্রিয়ায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কী নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে? তার প্রশ্নের জবাবে বেদান্ত প্যাটেল ওই মন্তব্য করেন।

মুশফিক তার কাছে আরও জানতে চান- বাংলাদেশে বিরোধী দলের আট হাজারের বেশি নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ন্যূনতম মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে বিক্ষোভ করতে গিয়ে ৩ পোশাক শ্রমিক নিহত হয়েছেন।জবাবে বেদান্ত প্যাটেল ওই মন্তব্য করেন যুক্তরাষ্ট্র আগেই বলেছে, তারা কোনো রাজনৈতিক দলকে সমর্থন করে না।

এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ  সরকার  ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মতো আরেকটি একতরফা নির্বাচনের দিকে এগোচ্ছে। এই পরিস্থিতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র কী ভাবছে? এমন প্রশ্নের জবাবে বেদান্ত প্যাটেল বলেন, আমরা কোনো প্রার্থী বা কোনো দলকে সমর্থন করি না। আমরা চাই অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য সবাই একযোগে কাজ করুক। এ জন্য যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের সব মহলের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে।

আরেক সাংবাদিক জানতে চান- বাংলাদেশে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে বলে আপনি কতটা আস্থাশীল? এ প্রশ্নের জবাবে বেদান্ত প্যাটেল বলেন, বাংলাদেশের মানুষ অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চায়। আমরাও তাই চাই। এ জন্য আমরা সরকার, বিরোধী দল, সুশীল সমাজ এবং অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি। বাংলাদেশি জনগণের স্বার্থে একসঙ্গে কাজ করার জন্য এটি করা হচ্ছে। আরেকজন সাম্প্রতিক সহিংসতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বলেন আমি  জানতে চাই, নির্বাচনের প্রায় দুই মাস আগে যারা ভাঙচুর করছে, নির্বাচনী ব্যবস্থায় বাধা দিচ্ছে, তাদের ভিসা নিষিদ্ধ করা হবে। জবাবে বেদান্ত প্যাটেল বলেন, আমরা একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন আশা করছি।

উল্লেখ্য, ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত পিটার হাসকে প্রকাশ্যে মারধরের হুমকি দিয়েছেন চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার চাম্বল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক মুজিবুল হক চৌধুরী। সোমবার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের অবরোধবিরোধী সমাবেশে তিনি এ হুমকি দেন। তার বক্তব্যের একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ভিডিওতে তিনি মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকেও কটূক্তি করেছেন।

পিটার হাস বিএনপির ভগবান হতে পারেন বলে দাবি করেন মুজিবুল হক চৌধুরী। কিন্তু আওয়ামী লীগের জন্য তিনি কিছুই করতে পারবেন না।

বেটা পিটার হাইস্সা, ওডা পিটার হাস আঁরা তরে ডরাই অবাজি। আঁরা তরে ডরাই। আমরা পাঁচ আঙ্গুলে ধরে ভাত খাই। আর তুই হইলি বিএনপির ভগবান। এমন পেটা পেটাব, বাঙালি কী রকম দুষ্ট জানিস না?’

যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার ডি হাসকে উদ্দেশ্য করে বক্তব্য দেন চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার চাম্বল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সভাপতি মুজিবুল হক চৌধুরী।

গত সোমবার (৬ নভেম্বর) চাম্বল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ আয়োজিত হরতাল বিরোধী সমাবেশ ও প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দিতে গিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান এ হুমকি দেন।

ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চৌধুরী বলেন, “কয়েকদিন আগে বিএনপির এক সহ-সভাপতি বলেছিলেন, হে বাজি পিটার হাস, তুমি আমাদের জন্য অবতার হয়ে এসেছ। আমরা আওয়ামী লীগ পিটার হাসকে  অবতার(ঈশ্বর)  মানি না। আমরা একমাত্র সৃষ্টিকর্তাকে ভগবান মানি। আমরা আওয়ামী লীগ ঈমান বিক্রি করি না ক্ষমতার জন্য। পিটার হাস বলতেছে এখানে নাকি সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।’

মুজিবুল হক চৌধুরী আরো বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামের সময়ও তোদের আমেরিকা বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে ছিল। তোদের হয়তো আওয়ামী লীগ সম্পর্কে ধারণা নেই। বিএনপির দালালি করতে পারবি। কিন্তু আমাদের একটা ক্যাশও (চুল) ছিঁড়তে পারবি না। এক সপ্তাহ পর তফসিল ঘোষণা হবে। এখানে জো বাইডেন দিয়ে কাজ হবে না।’

মুজিবুল হক আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগ নাকি ধর্মবিরোধী। ইতোমধ্যে সারা দেশের মুসলমানরা ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ক্ষেপে গেছে। কিন্তু বিএনপি ফিলিস্তিনকে নিয়ে কথা বলেনি, আমেরিকা গোস্বা হবে বলে। এখন তারা বিদেশে প্রতিবাদ করছে। জো বাইডেনের কাছে যাচ্ছি। সব দেশ পিছু হটলেও জো বাইডেন রয়ে গেছেন। কি জন্য জানেন? জো বাইডেন আমার নেত্রী শেখ হাসিনার কাছে কক্সবাজারের সেন্ট মার্টিন দ্বীপ চেয়েছিলেন। আমার নেত্রী সাফ জানিয়ে দিয়েছেন আমি বঙ্গবন্ধুর কন্যা। আমার ক্ষমতার দরকার নেই। দেশের সম্পদ বিক্রি করব না। আমার নেত্রী একথা বলার পর বিএনপি এখানে এসে পিটার হাসের পিছু নিয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান মুজিবুল হক চৌধুরীর এই বক্তব্য এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল। এর আগে ইউপি নির্বাচনের সময় ‘ব্যালটের পরিবর্তে ইবিএম না হলে আমি কারও কাছে ভোট চাইব না’বক্তব্য দিয়ে তিনি আলোচনায় এসেছিলেন।

আরও পড়ুন-পিটার হাসের নিরাপত্তা নিয়ে ওয়াশিংটনে আলোচনা,উদ্বেগ

    1 Comment

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X