নিরপেক্ষ নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য বাধা রয়েছে: বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন-পূর্ব পর্যবেক্ষণ দল: ৫ টি সুপারিশ

নিরপেক্ষ নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য বাধা রয়েছে: বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন-পূর্ব পর্যবেক্ষণ দল: ৫ টি সুপারিশ

নিরপেক্ষ নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য বাধা রয়েছে: বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন-পূর্ব পর্যবেক্ষণ দল: ৫ টি সুপারিশ

নিরপেক্ষ নির্বাচনে উল্লেখযোগ্য বাধা রয়েছে: বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন-পূর্ব পর্যবেক্ষণ দল: ৫ টি সুপারিশ

বর্তমানে বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক যাত্রা বেশ কয়েকটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। কিছু ক্ষেত্রে অগ্রগতি সত্ত্বেও, বর্তমান রাজনৈতিক পরিবেশ নির্বাচনী অখণ্ডতার ক্ষেত্রে বড় বাধা তৈরি করেছে। এর মধ্যে রয়েছে আপসহীন এবং শূন্য-সমষ্টি (সমস্ত বা কিছুই) রাজনীতি। উচ্চ মাত্রার বাগাড়ম্বর, রাজনৈতিক সহিংসতা, অনিশ্চয়তা এবং ভয়ের একটি বিস্তৃত প্রভাব, সুশীল সমাজ এবং স্বাধীন মত প্রকাশের জন্য স্থান সংকুচিত হচ্ছে। এ ছাড়া নাগরিক, রাজনৈতিক নেতা ও তাদের শরিকদের মধ্যে আস্থার সংকট রয়েছে।

নারী, যুবক এবং অন্যান্য প্রান্তিক গোষ্ঠী অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য বাধার সম্মুখীন হয়। এসব চ্যালেঞ্জ গণতান্ত্রিক নীতির জন্য হুমকিস্বরূপ।

এর ফলে টেকসই উন্নয়নের দিকে দেশের ইতিবাচক গতিপথ ক্ষুণ্ন হতে পারে। বাংলাদেশ এখন এক সন্ধিক্ষণে। আসন্ন নির্বাচন গণতান্ত্রিক, অংশগ্রহণমূলক এবং রাজনৈতিক প্রতিযোগিতার প্রতি দেশের অঙ্গীকারের একটি লিটমাস পরীক্ষা। বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগের মূল্যায়নে এসব কথা বলেছে ইন্টারন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনস্টিটিউট (আইআরআই) ও ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক ইনস্টিটিউট (এনডিআই)। এ জন্য যুক্তরাষ্ট্রের ৬ প্রতিনিধির একটি দল ৮ অক্টোবর থেকে ১১ অক্টোবর পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করেছে।

এ সময় তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, সরকারের বিভিন্ন কর্মকর্তা, নির্বাচন কমিশন, রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজের প্রতিনিধিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের মানুষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রতিনিধি দলে ছিলেন ইউএসএআইডির সাবেক ডেপুটি অ্যাডমিনিস্ট্রেটর বনি গ্লিক (আইআরআই ভাইস প্রেসিডেন্ট), দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী কার্ল এফ ইন্ডারফুর্থ (এনডিআই ভাইস প্রেসিডেন্ট), মালয়েশিয়ার প্রতিনিধি পরিষদের সাবেক সদস্য মারিয়া চিন আবদুল্লাহ, যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক অ্যাসোসিয়েট কাউন্সেল। সভাপতি জামিল জাফর, আইআরআই (এশিয়া প্যাসিফিক বিভাগ) এর সিনিয়র ডিরেক্টর জোহানা কাও এবং এনডিআই আঞ্চলিক পরিচালক (এশিয়া প্যাসিফিক) মনপ্রীত সিং আনন্দ। পরিদর্শন শেষে এ প্রতিনিধি দল একটি প্রতিবেদন দিয়েছে। তারা নির্বাচন কমিশন, সরকার, রাজনৈতিক দল এবং নির্বাচনের স্টেকহোল্ডারদের বিবেচনার জন্য কিছু সুপারিশ পেশ করেছে। এই সুপারিশগুলিকে একটি রোডম্যাপ বলা হয়, যা নির্বাচনের আগে এবং পরে বিশ্বাসযোগ্য, অন্তর্ভুক্তিমূলক, প্রতিযোগিতামূলক এবং অহিংস নির্বাচনের দিকে অগ্রগতিতে সহায়তা করবে। বাংলাদেশের গণতন্ত্র এগিয়ে যাবে।

সুপারিশগুলো হলো-

১. নির্বাচনের গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু হতে পারে পরিমিত কথাবার্তা, উন্মুক্ত এবং গঠনমূলক সংলাপ।

২. মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং নাগরিক সমাজের কথা বলার স্থান নিশ্চিত করতে হবে, যেখানে ভিন্ন মতাবলম্বীদের প্রতি সম্মান দেখানো হবে।

৩. অহিংস থাকার প্রতিশ্রুতি দিতে হবে এবং রাজনৈতিক সহিংসতাকারীদের জবাবদিহিতায় আনতে হবে।

৪. সব দলকে অর্থবহ রাজনৈতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণের পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। এর মধ্যে থাকবে স্বাধীন নির্বাচন ব্যবস্থাপনাকে শক্তিশালী করা।

৫. নাগরিকদের মধ্যে অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং সক্রিয় নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহণের সংস্কৃতিকে উৎসাহিত করতে হবে।

এসব সুপারিশের ব্যাখ্যায় বলা হয়,
  • রাজনৈতিক দলগুলোর বক্তব্যে উদার হতে হবে।
  • অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতাদের বৈধতা মেনে নিতে হবে।
  • আচরণবিধি মেনে চলতে হবে।
  • বর্তমান রাজনৈতিক অচলাবস্থা কাটিয়ে উঠতে রাজনৈতিক দলগুলোকে সরল বিশ্বাসে আপস করতে হবে।
  • বাস্তব, টেকসই এবং বিশ্বাসযোগ্য পরিবর্তন সৃষ্টি করতে হবে।
  • এই আইন বাস্তবায়নে সরকারকে নাগরিক ও অন্যান্য অংশীদারদের নিতে হবে।
  • নির্বাচনী রেজ্যুলেশনে নাগরিক পর্যবেক্ষকদের নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় সম্পূর্ণ প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে হবে।
  • সমস্ত দলকে প্রকাশ্যে অহিংসার প্রতিশ্রুতি দিতে হবে এবং তাদের নিজস্ব সদস্য বা সমর্থকদের দ্বারা সংঘটিত সহিংসতার নিন্দা করতে হবে।
  • নির্বাচনে অহিংসা নিশ্চিত করতে সব দলকে বহুদলীয় আচরণবিধিতে যোগ দিতে হবে।
  • নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতা ও রাজনৈতিক নিরপেক্ষতা জোরদার করতে হবে।
  • কর্মী ও তহবিল বৃদ্ধি করে তাদের সক্ষমতা বাড়াতে হবে। সকল রাজনৈতিক দলকে অবশ্যই নিবন্ধিত হতে হবে।
  • রাজনৈতিক কর্মী, সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ এবং মিডিয়া প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে বিচারাধীন সব মামলার দ্রুত এবং বিশ্বাসযোগ্য বিচারিক পর্যালোচনা করতে হবে।
  • নির্বাচন অহিংস হয় এমন পরিবেশ বজায় রাখতে সকল অংশীদারকে অবদান রাখতে হবে।

এবং ব্যাখায় আরও বলা হয়,  সাংবাদিক ও গণমাধ্যমের সকল রাজনৈতিক দল, সরকারের বিভিন্ন বিভাগ এবংবাংলাদেশের ইস্যুতে সমালোচনামূলক প্রতিবেদন করতে স্বাধীন হওয়া উচিত। নাগরিকদের স্বাধীনভাবে তাদের মতামত প্রকাশ করতে দেওয়া উচিত। উভয় এলাকাই প্রতিশোধের ভয় মুক্ত হতে হবে। গণতন্ত্র এবং মানবাধিকার ইস্যুতে কাজ করে এমন সুশীল সমাজ সংস্থা এবং সম্প্রদায়-ভিত্তিক সংস্থাগুলিকে তাদের কার্যক্রম হ্রাস বা সীমিত করার হুমকি দেওয়া উচিত নয়। নতুন পাস করা সাইবার নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার বা লঙ্ঘন করা উচিত নয়। এর মধ্যে তার ভিন্নমতের জন্য তাকে টার্গেট করা অন্তর্ভুক্ত।

আরও পড়তে

ভিসা নীতিতে গণমাধ্যমও অন্তর্ভুক্ত করা হবে: পিটার হাস

সরকারের পতন নিশ্চিত করতে কঠোর ও চূড়ান্ত আন্দোলনের পথে বিএনপি

হাতজোড় করে ক্ষমা চাইলেন শামীম ওসমানঃ ক্ষমতা ছাড়ার প্রশ্নে বেকায়দায় মোমেন

রাজনৈতিক নেতা ও কর্মীদের আইনি ও অহিংস রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সময় রাষ্ট্রীয় কর্তৃপক্ষের দ্বারা সহিংসতার শিকার হওয়া উচিত নয়। রাজনৈতিক দল এবং অন্যান্য স্টেকহোল্ডারদের উচিত নির্বাচনে নারীর প্রতি অনলাইন ও অফলাইনে সহিংসতা প্রতিরোধ, চিহ্নিতকরণ এবং মোকাবেলা করার জন্য ব্যবস্থা নেওয়া।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X