May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়াতে চান না কানাডার প্রধানমন্ত্রীঃ শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা হত্যা প্রসঙ্গ

ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়াতে চান না কানাডার প্রধানমন্ত্রীঃ শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা হত্যা প্রসঙ্গ

ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়াতে চান না কানাডার প্রধানমন্ত্রীঃ শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা হত্যা প্রসঙ্গ

ভারতের সঙ্গে উত্তেজনা বাড়াতে চান না কানাডার প্রধানমন্ত্রীঃ শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা হত্যা প্রসঙ্গ

জুন মাসে কানাডায় এক শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতার হত্যার ঘটনা অটোয়া ও নয়াদিল্লির মধ্যে নতুন করে কূটনৈতিক উত্তেজনার জন্ম দিয়েছে। কানাডা বলেছে যে ভারত সরকার এই হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারে, ভারত এমন অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছে। একই সঙ্গে উভয় দেশ একে অপরের কূটনীতিকদের বহিষ্কার করেছে।

কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো বলেছেন, তিনি ভারতকে উস্কে দিতে বা উত্তেজনা বাড়াতে চান না। কিন্তু তিনি চান দিল্লি শিখ বিচ্ছিন্নতাবাদী (১৯৭৭ সালে ভারতের পাঞ্জাব প্রদেশের জলান্ধার জেলায় জন্ম নিজ্জারের। ১৯৯৭ সালে তিনি কানাডা গমন করেন) নেতার হত্যাকাণ্ডকে খুব গুরুত্বের সঙ্গে দেখুক। মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে জাস্টিন ট্রুডো সোমবার সংসদের জরুরি অধিবেশন ডেকেছিলেন। সেখানে তিনি অভিযোগ করেন, শিখ নেতা হরদীপ সিং নিজার হত্যার সঙ্গে ভারত সরকার সরাসরি জড়িত থাকতে পারে। একই দিনে, এর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলোনি জোলি ভারতের কূটনৈতিক মিশন থেকে একজন সিনিয়র কূটনীতিককে RAW এর এজেন্ট হিসেবে বহিষ্কার করেন।

জবাবে ভারতও কানাডার একজন সিনিয়র কূটনীতিককে পাঁচ দিনের মধ্যে ভারত ছাড়ার নির্দেশ দেয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ব্রিটেন এবং অস্ট্রেলিয়ার মধ্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তারা জানিয়েছে যে তারা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছে এবং কানাডার সাথে যোগাযোগ করছে।

শিখ নেতা হরদীপ সিং নিজার হত্যার উত্তেজনা ভারত এবং কানাডায় সীমাবদ্ধ থাকলেও এটি বিশ্বজুড়ে শিরোনাম হয়েছে। মঙ্গলবার কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো সাংবাদিকদের কাছে তার অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন। এ সময় তিনি বলেন, আমরা উসকানি বা উত্তেজনা চাই না। আমরা যা চাই তা হল ভারত সরকারের সাথে কাজ করা যাতে সবকিছু পরিষ্কার করা যায় এবং ভারতের যেন যথাযথ প্রক্রিয়া নেওয়া হয় তা নিশ্চিত করা।

হরদীপ সিং নিজা হত্যার বিষয়ে জাস্টিন ট্রুডোর অভিযোগ সরাসরি প্রত্যাখ্যান করেছে ভারত।

ভারতের  বিদেশ মন্ত্রী  এক বিবৃতিতে বলেছে যে কানাডায় যে কোনও ধরণের সহিংসতায় ভারত সরকারের জড়িত থাকার অভিযোগগুলি উদ্দেশ্যমূলক।

উল্লেখযোগ্যভাবে, হরদীপ সিং নিজার (৪৫) নিষিদ্ধ খালিস্তান টাইগার ফোর্সের প্রধান। যদিও  সে ভারতের মোস্ট ওয়ান্টেড সন্ত্রাসী। ১৮ জুন কানাডার ভ্যাঙ্কুভারে দুই অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি তাকে গুলি করে হত্যা করে। ট্রুডো দাবি করেছেন যে কানাডা তদন্তে ভারত সরকারের জড়িত থাকার বিষয়ে ‘বিশ্বাসযোগ্য’ তথ্য পেয়েছে।

উদ্ভূত পরিস্থিতির কারণে ভারত সফরের জন্য ভ্রমণ সতর্কতা আপডেট করেছে কানাডা। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যেমন তার নাগরিকদের ভ্রমণ সতর্কতা জারি করে, এটি এমন একটি সতর্কতা। এর আগে কানাডার নাগরিকদের জম্মু ও কাশ্মীর, উত্তর-পূর্ব ভারত, বিশেষ করে আসাম এবং সহিংসতা-বিধ্বস্ত মণিপুর ভ্রমণের বিরুদ্ধে সতর্ক করা হয়েছিল। সদ্য আপডেট হওয়া ভ্রমণ সতর্কতায় হরদীপ সিং নিজার বা পাঞ্জাবের খালিস্তান আন্দোলনের উল্লেখ নেই। এতে বলা হয়েছে, জম্মু ও কাশ্মীরের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ করছে। সহিংস বিক্ষোভ, নাগরিক অস্থিরতা, সন্ত্রাসী এবং চরমপন্থী কার্যকলাপের উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে। প্রতিনিয়ত জঙ্গি ও নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে সহিংস সংঘর্ষ হচ্ছে। নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর সন্ত্রাসী হামলার ফলে বেসামরিক মানুষ হতাহত হয়েছে। যেকোনো সময় আবারও হামলা হতে পারে।

কানাডিয়ানদের সতর্ক করা হয়েছে, আপনারা  ভুল সময়ে ভুল জায়গায় থাকতে পারেন। উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় আসাম ও মণিপুর রাজ্যে বেশ কিছু চরমপন্থী ও বিদ্রোহী গোষ্ঠী সক্রিয় রয়েছে। তারা নিয়মিত স্থানীয় সরকার ও নিরাপত্তা বাহিনীকে টার্গেট করে। তাদের কর্মকান্ডের অর্থায়নের জন্য বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড ব্যবহার করতে পারে। রাজ্যে জাতিগত উত্তেজনা সংঘর্ষ এবং নাগরিক অস্থিরতার দিকে নিয়ে যেতে পারে।

হরদীপ সিং নিজ্জারকে ১৮ জুন কানাডার ব্রিটিশ কলাম্বিয়ার একটি শিখ মন্দিরের বাইরে গুলি করে হত্যা করা হয়।

সোমবার কানাডার হাউস অব কমন্সের বৈঠকে মি. ট্রুডো বলেছেন, কানাডার গোয়েন্দা সংস্থা মি. নিজ্জার হত্যায় ভারত সরকারের জড়িত থাকার ‘বিশ্বাসযোগ্য’ প্রমাণ পেয়েছে ।

যদিও  ভারত এই অভিযোগকে ‘অযৌক্তিক’ বলে উড়িয়ে দিয়েছে।ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে: “আমরা একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র এবং আইনের শাসনের প্রতি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।”

ভারতের বিবৃতিতে কানাডাকে “খালিস্তানি সন্ত্রাসী ও চরমপন্থীদের” আশ্রয় দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে যারা দীর্ঘদিন ধরে ভারতের নিরাপত্তার জন্য হুমকিস্বরূপ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়েছে: “আমরা কানাডার সরকারকে কানাডার মাটিতে সব ধরনের ভারত বিরোধী কার্যকলাপের বিরুদ্ধে কার্যকর আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।”মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হোয়াইট হাউস মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে মন্তব্য করেছে যে,   তারা মিঃ ট্রুডোর অভিযোগ নিয়ে ‘গভীরভাবে উদ্বিগ্ন’।

আরও পড়ুন

মুসলিম যুবককে নির্মম নির্যাতন করে বিজেপি নেতা: জোর করে থুথু চাটতে…

হোয়েট হাউস ন্যাশনাল সিকিউরিটি কাউন্সিলের মুখপাত্র অ্যাড্রিয়েন ওয়াটসন বলেছেন, “আমরা আমাদের কানাডিয়ান সমকক্ষদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ করছি।” এটি নিশ্চিত করা গুরুত্বপূর্ণ যে কানাডার তদন্ত সঠিকভাবে পরিচালিত হয়েছে এবং অপরাধীদের বিচারের আওতায় আনা হয়েছে।

    1 Comment

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X