June 19, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
গাজাবাসীর তৃষ্ণা মেটাচ্ছেন নিবেদিতপ্রাণ জামিল ও তার গাধা

গাজাবাসীর তৃষ্ণা মেটাচ্ছেন নিবেদিতপ্রাণ জামিল ও তার গাধা

গাজাবাসীর তৃষ্ণা মেটাচ্ছেন নিবেদিতপ্রাণ জামিল ও তার গাধা

গাজাবাসীর তৃষ্ণা মেটাচ্ছেন নিবেদিতপ্রাণ জামিল ও তার গাধা

মঙ্গলবার অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় একটি হাসপাতালে প্রাণঘাতী হামলা চালায় ইসরাইল। গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ওই এক হামলায় একসঙ্গে ৫০০ মানুষ মারা গেছে।

আল-আহলি আরব নামক ওই হাসপাতালে অনেক আহত ও অসুস্থ মানুষ চিকিৎসা নিচ্ছিল। এ ছাড়া দখলদার ইসরাইলিদের হামলা এড়াতে অনেকেই এটিকে ‘নিরাপদ আশ্রয়স্থল’ ভেবে হাসপাতালে থেকে যান।

গাজার হামাস-নিয়ন্ত্রিত সরকার হাসপাতালে হামলাকে ‘যুদ্ধাপরাধ’ বলে অভিহিত করেছে। গত ৭ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া ইসরায়েলি বাহিনীর নির্বিচার বিমান হামলায় মঙ্গলবার পর্যন্ত তিন হাজার ফিলিস্তিনি নিহত হওয়ার খবর জানিয়েছে হামাস। এরই মধ্যে হাসপাতালে এই ভয়াবহ হামলা চালানো হয়।

কিন্তু নিবেদিতপ্রাণ ফিলিস্তিনি যুবক জামিল আল কারুবি বসে নেই। প্রতিদিন সূর্যোদয়ের আগে ঘুম থেকে উঠে । এরপর পরিবারের জন্য সবকিছু জোগাড় করার পর, তিনি তার গাধা এবং গাড়ি নিয়ে গাজার গর্তযুক্ত রাস্তায় প্রতিবেশীদের জন্য বিশুদ্ধ পানীয় জল সংগ্রহ করতে বের হন। গত ৯  দিন ধরে এটি তার নতুন দৈনন্দিন রুটিন হয়ে উঠেছে।

জামিল বলেন, আমি আমার বন্ধু আলমন্ডের (গাধা) সঙ্গে চুক্তি করেছি। আমি তাকে প্রতিদিন একটি অতিরিক্ত ব্যাগ খাবার দেব যদি সে প্রতিদিন সকালে উঠে জলের ট্যাঙ্কটি পূরণ করতে এবং প্রতিবেশীদের কাছে তা বিতরণ করতে সহায়তা করে। “তারপর থেকে তিনি আমাদের চুক্তি রেখেছেন,” ।

যুদ্ধের আগে ৩৪ বছর বয়সী জামিল তার ট্রাকে সবজি বিক্রি করতেন। তবে দখলদার ইসরায়েলি বাহিনীর বোমা হামলার পর থেকে তিনি এবং তার বন্ধু আলমন্ড সাধ্যমতো মানুষের সেবা করে যাচ্ছেন।

কয়েক বছর আগে জামিল তার পিতার মৃত্যুর পর উত্তরাধিকার সূত্রে একটি কূপ পান। এখন তিনি পরিবারের পানির চাহিদা মেটানোর আগে দুটি বড় ট্যাঙ্ক ভর্তি করেন। তারপর গাড়িতে পানি নিয়ে ঘুরতে যান। প্রতিবেশীদের তাদের গ্যালন, ট্যাঙ্ক এবং জলের ব্যাগ ভর্তি করার জন্য ডাকেন।

জামিল তার মা, স্ত্রী ও চার সন্তান নিয়ে থাকেন। এক সপ্তাহেরও বেশি আগে ইসরায়েলি বাহিনী গাজায় পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। কিন্তু তাদের কূপে তাদের প্রতিবেশীদের জন্য পর্যাপ্ত পানি রয়েছে।

এটা জামিলের জন্য সহজ সিদ্ধান্ত ছিল। কারণ তিনি বিশ্বাস করেন যে জনগণের  পাশে দাঁড়ানো উচিত এবং সেই বিশ্বাসকে বাস্তবে প্রয়োগও  করছেন তিনি । তিনি পানির জন্য অর্থ গ্রহণ করেন না, যদিও তার নিজের শ্রমজীবী পরিবার অবশ্যই টাকা নিতেই পারতেন ।

জামিল বলেন, আমি পানি বিক্রি করি না, বিনামূল্যে বিতরণ করি। আমি আমার প্রতিবেশীদের সাহায্য না করলে কে করবে? ইসরাইল? আমি এটাকে সন্দেহ করি।

জামিলের এক প্রতিবেশী বলেন, পানি অপরিহার্য, তারা ইন্টারনেট এমনকি বিদ্যুৎ ছাড়া বাঁচতে পারে, কিন্তু পানি ছাড়া নয়।

তারা বলেন, জামিল না থাকলে আমরা কী করতাম জানি না। আমরা সাহায্য সংস্থাগুলির কাছে পানি  আনার চেষ্টা করেছি, কিন্তু খুব ভিড় এবং সেই  পানি পরিষ্কারও নয়।

জামিল বলেন যে তিনি আরও লোকদের সাহায্য করার জন্য তার আশেপাশের বাইরে যেতে চেয়েছিলেন, কিন্তু ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র হামলার ধ্বংসাবশেষ পড়ে থাকায়  রাস্তায় তার গাড়ি চালানোকে  অসম্ভব করে তুলেছে।

গাড়ি চালানোর সময় তার ক্ষতি হতে পারে বলে তার পরিবারের উদ্বেগ ও আশঙ্কা রয়েছে। তবে জামিলকে এ কাজে বাধা দিতে চান না তারা।

জামিলের ছোট ছেলে ওসামা বলেন, “আমার বাবা মনে করেন যে কেউ এমনকি অপরিচিতদের সাহায্য করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে।” তিনি (জামিল) সবচেয়ে সুখী এবং গর্বিত, যখন মানুষ তৃষ্ণার্ত না হয়ে রাতে ঘুমাতে পারে।

তিনি আরো বলেন, গাজা জুড়ে নির্বিচারে ইসরায়েলি ক্ষেপণাস্ত্র পড়ছে। এমনকি বিপজ্জনক সময়েও আমরা বাবকে থামাতে পারি না। মানুষ আমাদের ভালোবাসে এবং বিনিময়ে আমরা এটাই চাই।

পানি  ছাড়াও, জামিল কখনও কখনও লেবু, আলু এবং অন্য যা কিছু পায় তার বাগান থেকে তার পরিবারের প্রয়োজন ছাড়াও প্রতিবেশীদের কাছে বিতরণ করে।

এ প্রসঙ্গে ফিলিস্তিনের এই তরুণ বলেন, আমার কাছে অতিরিক্ত থাকলে বিনামূল্যে সবজি দিতে আমার আপত্তি নেই। এটা আমাকে এবং মানুষকে খুশি করে।

তার প্রচেষ্টা এবং সাহস তার প্রতিবেশীদের প্রশংসা কুড়িয়েছে।প্রতিবেশীরা প্রায়ই তার গাধার জন্য খাবার নিতে জোরাজুরি করে, যাতে আলমন্ড জামিলকে প্রতিদিন এই মহান কাজে তাকে সাহায্য করতে পারে।

জামিল রাজনীতি করেন না এবং যুদ্ধ কবে শেষ হবে তা তিনি জানেন না। সে শুধু জানে তার প্রতিবেশীরা তৃষ্ণার্ত।জামিল বলেন, “যতদিন আমার প্রতিবেশীদের আমার প্রয়োজন হবে, আমি সেখানে থাকব এবং যতটা সম্ভব সাহায্য করার চেষ্টা করব,”

আরও পড়ুন

ইসরায়েলকে বসতি স্থাপন বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ

উল্লেখ্য, ফিলিস্তিনের অবরুদ্ধ গাজা ভূখণ্ডে দখলদার ইসরাইলি বাহিনীর বিমান হামলা অব্যাহত রয়েছে। এতে ২ হাজার ৮০০ ফিলিস্তিনি নিহত হয়। আহত হয়েছেন অন্তত ১১ হাজার মানুষ। হতাহতদের মধ্যে নারী ও শিশু রয়েছে। একই সঙ্গে গাজায় বিদ্যুৎ, জ্বালানি, খাদ্য ও পানি সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে ইসরাইল।আবার সেই  অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায়ই একটি হাসপাতালে প্রাণঘাতী হামলা চালায় ইসরাইল। ওই এক হামলায় একসঙ্গে ৫০০ মানুষ মারা গেছে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X