জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ৬ বছরে বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৪ কোটির বেশি শিশু

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ৬ বছরে বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৪ কোটির বেশি শিশু

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ৬ বছরে বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৪ কোটির বেশি শিশু

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ৬ বছরে বাস্তুচ্যুত হয়েছে ৪ কোটির বেশি শিশু

জলবায়ু পরিবর্তন কি?

বছরের পর বছর ধরে একটি জায়গায় আবহাওয়ার গড় প্যাটার্নকে জলবায়ু পরিবর্তন বলা হয়। এবং জলবায়ু পরিবর্তন বলতে ৩০ বছর বা তার বেশি সময়ের মধ্যে একটি স্থানের গড় জলবায়ুতে দীর্ঘমেয়াদী এবং অর্থবহ পরিবর্তনকে  বোঝায়। একটি নির্দিষ্ট এলাকায় তাপমাত্রা বা বৃষ্টিপাতের উল্লেখযোগ্য পরিবর্তনকে  বোঝায় ।

কেন জলবায়ু পরিবর্তন ঘটে?

মূলত, মানুষের কর্মকাণ্ডই জলবায়ু পরিবর্তনের প্রধান কারণ, তবে জলবায়ুর কিছু পরিবর্তন প্রাকৃতিক কারণেও হয়। যেমন: পৃথিবীর বিভিন্ন গতিশীল প্রক্রিয়া, সৌর বিকিরণের মাত্রা, পৃথিবীর অক্ষের দিক বা সূর্যের সাপেক্ষে পৃথিবীর অবস্থান।

আধুনিক যুগে প্রবেশের পর শীতে ঘর গরম রাখতে রুম হিটার, মানুষের তৈরি কলকারখানা, যানবাহন, তেল, গ্যাস ও কয়লা পোড়ানোর ফলে পৃথিবীর তাপমাত্রা এখন ১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়েছে।

বর্তমানে, মানব সৃষ্ট গ্রিনহাউস গ্যাসের কারণে সৃষ্ট বৈশ্বিক উষ্ণতাকে জলবায়ু পরিবর্তনের অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। যা কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ বৃদ্ধির কারণে তাপমাত্রা বৃদ্ধির জন্য দায়ী। আর তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে বায়ুমণ্ডলের ভারসাম্য নষ্ট হয়ে জলবায়ু পরিবর্তন হচ্ছে।

বন উজাড়ের ফলে বায়ুমণ্ডলে গ্রীনহাউস গ্যাস নিঃসরণ বাড়ছে। গাছপালা কার্বন সঞ্চয় করে। ফলস্বরূপ, যখন সেই গাছগুলি কেটে ফেলা হয় বা পুড়িয়ে দেওয়া হয়, তখন সঞ্চিত কার্বন বায়ুমণ্ডলে নির্গত হয়। ১৯ শতকের পর থেকে গ্রীনহাউস গ্যাস কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ ৫০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। গত দুই দশকে তা বেড়েছে ১২ শতাংশ।

বন্যা, খরা, ঝড় ও দাবানলসহ বিভিন্ন জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ছয় বছরে অন্তত চার কোটি শিশু বাস্তুচ্যুত হয়েছে। জাতিসংঘের শিশু সংস্থা ইউনিসেফের মতে, ২০১৬ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত ৪ কোটি ৩১ লাখ  শিশু বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ইউনিসেফ এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সংস্থাটি সতর্ক করেছে যে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি মনোযোগের অভাব রয়েছে। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করছে সংগঠনটি।

ইউনিসেফের প্রতিবেদনে বাস্তুচ্যুত শিশুদের করুণ জীবনের গল্প তুলে ধরা হয়েছে। প্রতিবেদনের সহ-লেখক লরা হিলি বলেন, তথ্যে  সম্পূর্ণ ছবি আঁকা হয়নি। এর বাইরেও অনেকে আরও অমানবিক জীবনযাপনের চিত্র রয়েছে।

প্রতিবেদনে সুদানের শিশু খালিদ আবদুল আজিমের ঘটনা বর্ণনা করা হয়েছে। শিশুর গ্রামে ভয়াবহ বন্যা দেখা দিয়েছে। তখন গ্রামের একমাত্র বাহন ছিল নৌকা। আব্দুল আজিম বলেন, আমরা আমাদের মালামাল মহাসড়কে সরিয়ে নিয়েছি। এবং আমরা কয়েক সপ্তাহ ধরে এখানে বাস করেছি।

অন্যদিকে, ২০১৭সালে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ায়, মিয়া এবং মায়া নামে দুই শিশু বোন তাদের ঘর পুড়ে যেতে দেখেছিল। মিয়া বলেন, ‘আমি ভয় পেয়েছিলাম, হতবাক হয়েছিলাম। সারারাত জেগে ছিলাম।’

জলবায়ু বিপর্যয়ের কারণে বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের পরিসংখ্যান সাধারণত বয়স অনুসারে গণনা করা হয় না। যাইহোক, ইউনিসেফ, অভ্যন্তরীণ বাস্তুচ্যুত মনিটরিং সেন্টারের সাথে কাজ করে, বাস্তুচ্যুত শিশুদের একটি তালিকা প্রকাশ করে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২০১৬ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত, ৪৪ টি দেশে ৪৩.১ মিলিয়ন শিশু বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে চার ধরনের জলবায়ু বিপর্যয়ের (বন্যা, ঝড়, খরা এবং দাবানল) দ্বারা বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

৯৫% বাস্তুচ্যুত ঘটনা বন্যা এবং ঝড়ের কারণে হয়েছে। লরা হিলির মতে, পরিসংখ্যান দেখায় যে প্রতিদিন প্রায়২০,০০০ শিশু বাস্তুচ্যুত হয়।

ভবিষ্যতে এই পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে বলেও পূর্বাভাস দিয়েছে ইউনিসেফের প্রতিবেদন। এতে বলা হয়েছে, বন্যা ও জলাবদ্ধতার কারণে আগামী ৩০ বছরে ৯৬ মিলিয়ন শিশু বাস্তুচ্যুত হতে পারে। ঘূর্ণিঝড়ে ১০.৩ মিলিয়ন শিশু বাস্তুচ্যুত হতে পারে। ৭.২ মিলিয়ন শিশু ঝড়ের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

ইউনিসেফ দ্বারা রিপোর্ট করা মোট বাস্তুচ্যুতির অর্ধেকেরও বেশি চীন, ফিলিপাইন এবং ভারতে ঘটেছে। এই তিনটি দেশে বাস্তুচ্যুতদের সংখ্যা ২২.৩ মিলিয়ন। চীনে এই সংখ্যা ৬.৪ মিলিয়ন। ভারতে বাস্তুচ্যুত শিশুদের সংখ্যা ৬.৭ মিলিয়ন। এবং ফিলিপাইনে 9.7 মিলিয়ন। প্রতিবেদনে দেশগুলোর ভূগোল, মৌসুমি বৃষ্টিপাত, ঘূর্ণিঝড় এবং বৃহৎ জনসংখ্যাকে দায়ী করা হয়েছে। বাংলাদেশের জলবায়ুর ক্ষতিকর প্রভাবে ৩৩ লাখ শিশু বাস্তুচ্যুত হয়েছে।

ছোট দ্বীপ রাষ্ট্রগুলিতে শিশু স্থানচ্যুতি সবচেয়ে সাধারণ। যার মধ্যে অনেকেই জলবায়ু জরুরী অবস্থার কারণে অস্তিত্ব হুমকির সম্মুখীন। আফ্রিকার বিভিন্ন দেশে এই সংখ্যা অনেক বেশি।

২০১৭ সালে, হারিকেন মারিয়া ছোট ক্যারিবিয়ান দ্বীপ ডমিনিকাতে ৭৬,০০০ শিশুকে বাস্তুচ্যুত করেছিল। সোমালিয়া ও দক্ষিণ সুদানে বন্যায় শিশু বাস্তুচ্যুতির রেকর্ড সর্বোচ্চ। সংখ্যাটি দেশের মোট জনসংখ্যার যথাক্রমে ১২ এবং ১১শতাংশ।

আরও জানুন

জলবায়ু বিপর্যয়: ঝুঁকিতে বিশ্বব্যাপী খাদ্য নিরাপত্তা

ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক ক্যাথরিন রাসেল এক বিবৃতিতে বলেছেন, যারা পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন। তারা ভয়ের পরিবেশে বড় হবে। তাদের এই দুশ্চিন্তা বহন করতে হবে যে তারা বাড়ি ফিরবে, স্কুল আবার শুরু করবে বা আবার সরে যেতে বাধ্য হবে।

চীন, ভারত এবং ফিলিপাইনে শিশু স্থানচ্যুতির হার সবচেয়ে বেশি বলে জানা গেছে। অধিক জনসংখ্যা ও ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে এসব দেশে যথাযথ প্রতিরোধ ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি বলেও জানা গেছে।

বাস্তুচ্যুত শিশুরা কীভাবে বিভিন্ন ঝুঁকির মধ্যে জীবনযাপন করছে তাও প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। এসব ঝুঁকির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো তাদের বাবা-মায়ের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া বা শিশু পাচারকারীদের হাতে পড়া।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X