May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
মোবাইল ফোন মাথার কাছে রেখে ঘুমানো বিপদজনক

মোবাইল ফোন মাথার কাছে রেখে ঘুমানো বিপদজনক

মোবাইল ফোন মাথার কাছে রেখে ঘুমানো বিপদজনক

মোবাইল ফোন মাথার কাছে রেখে  ঘুমানো বিপদজনক

সকালে ঘুম থেকে ওঠা থেকে শুরু করে রাতে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্ত মোবাইল এখন মানুষের প্রিয় সঙ্গী। বলা যায় মোবাইল ফোন মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সঙ্গী। ঘুমাতে যাওয়ার আগে অনেকেই মোবাইল ফোনে ফেসবুক বা ইন্ট্রাগ্রামের নিউজ ফিড চেক করে থাকেন। আর মাথার কাছে বা বালিশের নিচে রেখে ঘুমিয়ে যান।কিন্তু আপনি কি জানেন ক্রমাগত মোবাইল ফোনের ব্যবহার কীভাবে আপনার শরীরের ক্ষতি করছে? মোবাইল ফোন মাথার কাছে বা বালিশের নিচে রাখা কতটা বিপজ্জনক।

সম্প্রতি একটি গবেষণায় উঠে এসেছে। এবং সেই গবেষণায় বলা হয়েছে যে ৬৫ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক এবং ৯০ শতাংশ কিশোর-কিশোরী তাদের পাশে এই ফোনটি নিয়ে ঘুমায়। সবাই জানে ঘুমের আগে এই নীল আলো দেখা ভালো নয়। এতে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে। যা নীরব ঘাতক হয়ে ওঠে এবং আমাদের স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে।

অনেকের সকালে মাথাব্যথা, দীর্ঘস্থায়ী, চোখে ব্যথা থাকে কিন্তু তারা বুঝতে পারে না যে এটি মোবাইল ফোনের কারণে হয়। আজ আমরা জানাবো পাশে ফোন রেখে ঘুমালে কী কী ক্ষতি হতে পারে, ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন কতটা দূরে থাকা উচিত, কীভাবে রাতে ফোন ব্যবহারের অভ্যাস ত্যাগ করা যায়, এবং এ সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কী বলে।

গবেষকদের মতে, মোবাইল ফোন থেকে নির্গত রেডিয়েশন আপনার মস্তিষ্কের ক্ষতি করতে পারে এবং আপনি প্রচণ্ড মাথাব্যথা, পেশী ব্যথা বা অন্য কোনো শারীরিক সমস্যা অনুভব করতে পারেন। মোবাইল থেকে বেরিয়ে আসা ৯০০ মেগাহার্টজ রেডিয়েশন শরীরের কার্যকারিতা নষ্ট করার সংকেত দেয়।

মোবাইল ফোন থেকে সব সময় যে রেডিয়েশন বের হয় তার ফলে শরীরের কোষের বৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হয়। ফলে বিভিন্ন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

মোবাইল ফোনের নীল রশ্মিও ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। যেহেতু এই রশ্মির তরঙ্গদৈর্ঘ্য দিনের আলোর সাথে খুব মিল, তাই মনে হয় আমরা দিনের আলোতে ঘুমাচ্ছি।

রাতে ঘুমানোর সময় মোবাইলের ব্যাটারি থেকে নির্গত গ্যাসের প্রভাবে চোখ, নাক, গলা জ্বালাপোড়ার মতো সমস্যা হতে পারে।

মোবাইল ফোনে ক্ষতিকারক রেডিয়েশন থাকে যা ক্রমাগত নির্গত হয়। এর প্রভাব মানুষের মস্তিষ্কের জন্য ক্ষতিকর যেমন মাথাব্যথা, পেশীর ব্যথা এবং অন্যান্য অনেক স্বাস্থ্য সম্পর্কিত অসুস্থতা দেখা দিতে পারে।

মোবাইল ফোনের বিকিরণ ইরেক্টাইল ডিসফাংশনের সাথে যুক্ত। মোবাইল ফোন থেকে নির্গত নীল আলো ঘুমের হরমোনকে ব্যাহত করে। একে মেলাটোনিক বলা হয়। এটি শরীরের ঘড়িতে ব্যাঘাত ঘটায়, ঘুমাতে অসুবিধা হয়। ইরেক্টাইল ডিসফাংশনের কারণে যৌন শক্তিকে উল্লেখযোগ্য হারে কমিয়ে দিতে পারে।

একটানা ফোনে কথা বললে ফোন গরম হয়ে যায়। এতে শরীরের ক্ষতি হয়। এছাড়াও মস্তিষ্ক থেকে নির্গত ক্ষতিকর রশ্মি আমাদের মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করে। এর পাশাপাশি মাংসপেশিতে টান, পেশিতে ব্যথা, মাথা ধরে রাখাসহ বিভিন্ন স্বাস্থ্য সমস্যা লেগেই থাকে।

ইরেক্টাইল ডিসফাংশন সরাসরি মোবাইল ফোনের রেডিয়েশনের সাথে সম্পর্কিত। এছাড়া সেলফোনের নীল আলো ঘুমের জন্য প্রয়োজনীয় হরমোন উৎপাদনে বাধা দেয়। এই মেলাটোনিন কম পরিমাণে উত্পাদিত হলে, সার্কাডিয়ান ছন্দ ব্যাহত হয়। সেজন্য আমার একটুও ঘুম হয় না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, ফোন থেকে নির্গত রেডিয়েশন গ্লিওমা হতে পারে। এক ধরনের কোলন ক্যান্সার। আর তাই মোবাইল ফোন কার্সিনোজেনিক ঝুঁকি বাড়ায়।

একাধিক গবেষণা প্রতিবেদন অনুসারে, মোবাইল আসক্তি ধীরে ধীরে আমাদের উপর প্রভাব ফেলছে। এমনকি ক্যান্সারের মতো রোগের প্রকোপও বাড়ছে। বিশেষ করে যারা মাথার কাছে ফোন রেখে ঘুমাতে যান, তাদের আয়ু কমে যাচ্ছে। এর পেছনে মূল কারণ বিকিরণ

চীন ও আমেরিকায় দুটি পৃথক গবেষণায় গবেষকরা দেখিয়েছেন যে মোবাইল ফোনের ক্রমাগত ব্যবহার, বিশেষ করে রাতে ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন শরীরের কাছাকাছি রাখা অত্যন্ত বিপজ্জনক। এই অভ্যাস মারাত্মক হতে পারে।

গবেষকরা বলছেন, বর্তমানে বেশিরভাগ মোবাইল ফোনে লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি ব্যবহার করা হয়। স্বাভাবিক অবস্থায় এই ব্যাটারি থেকে প্রায় ১০০ টি গ্যাস নির্গত হয়, যা মানবদেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর। এই সমস্ত গ্যাসের মধ্যে রয়েছে কার্বন মনোক্সাইডের মতো বিষাক্ত গ্যাস। এই কার্বন মনোক্সাইড অতিরিক্ত মাত্রায় শরীরে প্রবেশ করলে মানুষের মারাত্মক রকমের বিভিন্ন ক্ষতিসহ বড় ধরনের দুর্ঘটনা হতে পারে।

এই প্রতিবেদনটি শুধুমাত্র যথাযথ তথ্যগত উদ্দেশ্যে লিখিত । বিস্তারিত তথ্যের জন্য ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে পারেন।

ঘুমানোর সময় মোবাইল ফোন নিয়ে কিরূপ সতর্ক থাকা উচিত?
  • মোবাইল ফোন বিছানা থেকে কমপক্ষে তিন ফুট দূরে রাখলে বিপজ্জনক রেডিয়েশন এড়ানো যায়। কারণ রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ফিল্ড এনার্জি মোবাইল ফোনের সাথে যুক্ত।
  • ঘুমাতে যাওয়ার সময় মোবাইল ফোনের সুইচ অফ করুন বা ফ্ল্যায়িং মুডে রাখুন। অনেকেই মোবাইল ফোনের পাশে অ্যালার্ম দিয়ে ঘুমান।
  • কিন্তু আসল অ্যালার্ম ঘড়ি রাখুন যখন আপনি জেনেছেন এটি আপনার জন্য ক্ষতিকর।
  • আপনি কতক্ষণ মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন তার একটি দৈনিক রুটিন তৈরি করুন। আপনি বাড়ি ফিরে ফোনে কতক্ষণ থাকবেন তা নির্ধারণ করুন এবং শোবার সময় সেট করুন।
  • শুধুমাত্র প্রতিদিন সেই নির্দিষ্ট সময়ে ফোন ব্যবহার করুন এবং সকাল পর্যন্ত বাকি রাতের জন্য ফোনটি স্পর্শ করবেন না।

এটি একটি অভ্যাস হয়ে গেলে, আপনাকে আপনার বিছানার পাশে আপনার ফোন রাখতে হবেনা বা আপনার ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে হবে না।

আরও পড়ুন

রাতে লাইট জ্বালিয়ে ঘুমাবেন ?

ঘুমের মধ্যে নির্বিঘ্নে পেটে ঢুকে যায় সাপটি, তরুণীর পেট থেকে বের হলো ৪ ফুট লম্বা সাপ

স্ত্রী, স্বামীর কোন পাশে ঘুমান সুন্নত?

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X