May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
অনলাইনে যেসব কাজ বিপজ্জনক ও বিরক্তিকর

অনলাইনে যেসব কাজ বিপজ্জনক ও বিরক্তিকর

অনলাইনে যেসব কাজ বিপজ্জনক ও বিরক্তিকর

অনলাইনে যেসব কাজ বিপজ্জনক ও বিরক্তিকর

অবশ্যই আমাদের এ কথা মনে রাখতে হবে যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো আজকাল নজরদারির বাইরে নয় । তাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। যদিওপ্রযুক্তির কল্যাণে আজকাল যোগাযোগ অনেক   সহজ হয়েছে। বিশ্বের একপাশে বসে আপনি সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে অন্য পাশে আপনার প্রিয়জনের সাথে সহজেই কথা বলতে পারেন,যোগাযোগ রাখতে পারেন । কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করার ক্ষেত্রে আমরা এখনও খুব উদাসীন। অনেকে না জেনে কিছু ভুল করে আবার কিছু মানুষ জেনেশুনেই করে। অনেকেই মনে করেন কম্পিউটারের পর্দার আড়ালে রেখে যা খুশি বলতে পারেন।

বলতে পারেন তার মানে এই নয় যে আপনার কথায় অন্যকে আঘাত করা উচিত। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করার সময় কিছু শালীনতা বজায় রাখা উচিত। কারণ কম্পিউটার স্ক্রিনের অপর পাশে বসে আপনি যে অন্য মানুষের সাথে কথা বলছেন তা ভুলে যাবেন না। আপনি যা সামনাসামনি বলতে পারবেন না তা অনলাইনে বলা উচিত নয়।  তাই আজ আমি  কতিপয়  জিনিস সম্পর্কে লিখতে  যাচ্ছি যা কখনই অনলাইনে করা উচিত নয়।

 ব্যক্তিত্বের পরিবর্তন করবেন না

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যাদের অনলাইন ব্যক্তিত্ব এবং অফলাইন ব্যক্তিত্ব সম্পূর্ণ আলাদা। মানুষ যতটা তাদের অনলাইন ব্যবহার দ্বারা আকৃষ্ট হয়, তারা অফলাইনে তাদের ব্যবহার দ্বারা হতাশ হতে পারে। এই ধরনের দ্বৈত জীবনযাপনকারী ব্যক্তিদের বিভিন্ন মানসিক সমস্যা রয়েছে এবং তাদের সামাজিকভাবে অবক্ষয়েরও সম্ভাবনা রয়েছে। তাই অনলাইন বা অফলাইনে মানুষের কাছে আপনার একই আসল ব্যক্তিত্ব উপস্থাপন করুন।

অযথা কাউকে ট্যাগ করবেন না

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ছবি পোস্ট করার আগে, ছবি আপলোড করার সময় আপনি তাদের ট্যাগ করতে পারেন কিনা তা জিজ্ঞাসা করুন যাদের সাথে আপনি একটি ছবি তুলেছেন। কারণ অনেকেই এই ট্যাগিং পছন্দ করেন না। কারণ ট্যাগিং অনেক মন্তব্য  নিয়ে আসে যা অনেক মানুষকে বিরক্ত করে।

কাউকে অপমান করবেন না

কখনো কারো ছবি বা পোস্ট দেখে অপমানজনক কিছু বলবেন না। আপনি তাদের পছন্দ না হলে তাদের এড়িয়ে যান. ব্যক্তিগত ক্ষোভ মেটাতে তাদের অনলাইনে আক্রমণ করবেন না। এগুলি সাইবার বুলিং এর বিভাগে পড়ে এবং আপনাকে আইনি সমস্যায় ফেলতে পারে। এছাড়া আপনার পরিবার ও অফিসের সহকর্মীদের মধ্যে আপনার ভাবমূর্তি নষ্ট  হতে পারে ।

ব্যক্তিগত এবং পেশাগত কাজের জন্য আলাদা অ্যাকাউন্ট রাখুন

সোশ্যাল মিডিয়ায় সক্রিয় থাকা অনেক চাকরিতে বাধ্যতামূলক। সেক্ষেত্রে পেশাগত কাজের জন্য আলাদা অ্যাকাউন্ট তৈরি করা উচিত। কারণ সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনার বন্ধুরা আপনাকে নিয়ে মজা করতে পারে বা আপনাকে একটি মেম দিয়ে ট্যাগ করছে, যা আপনি কখনই আপনার অফিসের বস বা ক্লায়েন্টকে  দেখাতে চান না। তাই আপনার ব্যক্তিগত ও পেশাগত কাজের জন্য আলাদা অ্যাকাউন্ট রাখুন।

যাকে আপনি জানেন না তাকে বন্ধুত্ব করবেন না

সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন কাউকে বন্ধুত্ব করবেন না যাকে আপনি জানেন না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যক্তিগত জীবনে যাদের বন্ধু হতে চান না তাদের বন্ধু বানাবেন কেন? এই সময়ে আপনার সোশ্যাল মিডিয়াতে অপরিচিত কাউকে যোগ করা আপনার নিরাপত্তার সাথে আপস করতে পারে। এছাড়াও আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হতে পারে। তাই আপনার সোশ্যাল মিডিয়ায় কখনই অপরিচিত কাউকে বন্ধু করবেন না।

সহজে রাগ প্রকাশ করবেন না

মানুষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাদের অনুভূতি প্রকাশ করতে চায়। নিজের জীবনের আনন্দের মুহূর্তগুলো অন্যদের সাথে শেয়ার করতে চান। কিন্তু অনেক সময় রাগ এমন অনেক বিষয় প্রকাশ করে যা অন্যের কাছে যেমন অপ্রীতিকর তেমনি নিজের কাছে লজ্জাজনক। তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় কখনও রাগ প্রকাশ করবেন না। লোকেরা আপনাকে অনলাইনে সান্ত্বনা দেয় কিন্তু পর্দার আড়ালে আপনাকে নিয়ে মজা করে।

অন্যদের কাছ থেকে অনুমতি ছাড়া ছবি ব্যবহার করবেন না

কেউ আপনার সাথে ছবি তুলতে রাজি হওয়ার মানে এই নয় যে আপনাকে তাদের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করতে হবে। কারো টাইমলাইন থেকে ছবি তোলা এবং নিজের বলে পাস করা অপরাধ। তাই কারো ছবি ব্যবহার করার আগে অবশ্যই ছবি আপলোড করার অনুমতি নিতে হবে।

গুজব ছড়ানো থেকে বিরত থাকুন

প্রযুক্তির আশীর্বাদে খবর দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। আর সেক্ষেত্রে সোশ্যাল মিডিয়া শেয়ারিং অপশন সাহায্য করে। কিন্তু বিভিন্ন খবর শেয়ার করার আগে জেনে নিন সেগুলো সঠিক কিনা। কারণ এসব ভুল সংবাদ প্রকাশের কারণে মানুষ বিভ্রান্ত হয়। ভুল খবর বা গুজব ছড়ানো প্রায়ই অপ্রীতিকর সমস্যার দিকে নিয়ে যায়।

আপনার সমস্ত রকমের  ব্যক্তিগত খবর পোস্ট করা থেকে বিরত থাকুন

সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করার সময় কিছু সীমানা অনুসরণ করা উচিত। আপনি যদি আপনার সমস্ত ব্যক্তিগত ঘটনা এবং ছবি সব সময় আপলোড করতে থাকেন তবে এটি প্রায়শই মানুষের কাছে বিরক্তিকর হয়ে ওঠে। দেখা যাচ্ছে যে  অনেকে এগুলো  জানতে চায় না।  এবং আপনি তাদের শুনতে, জানাতে  বাধ্য করেন। তাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার ব্যক্তিগত সব ঘটনা আপলোড করা এড়িয়ে চলুন।

আরও জানতে

বিশ্বের জনসংখ্যার প্রায় ৬৫ শতাংশ ৫ কোটি মানুষ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে

সোশ্যাল মিডিয়ার কারণে আজকাল মানুষ নানা সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। আর এসবের প্রধান কারণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অসচেতন ব্যবহার। তাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।সর্বোপরি বলা যায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা নেট দুনিয়ার যেকোনো জায়গায় আমি বিচরণ করি না কেন । অবশ্যই ভদ্রতা এবং শালীনতার ভিতরে থাকার চেষ্টা করি  । অন্যথায় সময়ের ব্যবধানে লজ্জায় এবং জটিলতায়  পড়তেই হবে ।

 

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X