May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের বিবৃতি :ড.ইউনূসের বিচারের নামে সরকারের প্রতারণার অবসানের সময় এসেছে: এ পর্যন্ত ১৬৮টি মামলা

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের বিবৃতি :ড.ইউনূসের বিচারের নামে সরকারের প্রতারণার অবসানের সময় এসেছে: এ পর্যন্ত ১৬৮টি মামলা

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের বিবৃতি :ড.ইউনূসের বিচারের নামে সরকারের প্রতারণার অবসানের সময় এসেছে: এ পর্যন্ত ১৬৮টি মামলা

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের বিবৃতি :ড.ইউনূসের বিচারের নামে সরকারের প্রতারণার অবসানের সময় এসেছে: এ পর্যন্ত ১৬৮টি মামলা

নোবেল বিজয়ী অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ১৬৮টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে । এর মধ্যে দুটি ফৌজদারি এবং বাকিগুলো শ্রম আইন লঙ্ঘনের মামলা। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে কর ফাঁকির মামলা হাইকোর্টে বিচারাধীন।

তার বিচারাধীন মামলাগুলো হলো-

গ্রামীণ টেলিকমের ৬৪ টি, গ্রামীণ কল্যাণের ৬৯ টি, গ্রামীণ কমিউনিকেশনের ২৫ টি, গ্রামীণ ফার্মাসিউটিক্যালের ৮ টি, আয়করের ৮ টি এবং ফৌজদারি ২ টি সহ মোট ১৬৮ টি মামলা রয়েছে।

এদিকে শ্রম আদালতে ড. ইউনূসের বিচার শুরুর পর থেকেই বিদেশ থেকে বিবৃতি আসছে। বারাক ওবামা, হিলারি ক্লিনটনসহ নোবেল বিজয়ী সব দলই বিচার বন্ধের দাবি জানায়। যদিও  সরকার এ বিষয়ে তাদের বক্তব্য পরিষ্কার করেছে।

বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই শ্রম আইনের অপপ্রয়োগ বন্ধ করতে হবে। এবং অবিলম্বে নোবেল শান্তি পুরস্কার বিজয়ী মুহাম্মদ ইউনূসকে হয়রানি ও ভয় দেখানো বন্ধ করতে হবে। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল সোমবার (১৮ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে বলেছে, ন্যায়বিচারের নামে এই প্রতারণার অবসান ঘটানোর সময় এসেছে সরকারের।

গ্রামীণ টেলিকম বোর্ডের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে কর্মসংস্থান আইন লঙ্ঘনের অভিযোগ রয়েছে। বাংলাদেশে শ্রম আইন ২০০৬ এর অধীনে তার বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ রয়েছে। ওই বোর্ডের অন্য তিন সদস্য (আশরাফুল হাসান, নুরজাহান বেগম, মোহাম্মদ শাহজাহান) একই অভিযোগে অভিযুক্ত।

২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে দায়ের করা ১৫০ টিরও বেশি মামলার মধ্যে এটি একটি। অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বিশ্বাস করে যে ‘বেসামরিক ও প্রশাসনিক’ অঙ্গনে বিষয়গুলির জন্য মুহাম্মদ ইউনূস এবং তার সহকর্মীদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি কার্যক্রম শুরু করা হচ্ছে। শ্রম আইন এবং বিচার ব্যবস্থার এই  অপব্যবহার তার কর্ম এবং ভিন্নমতের জন্য রাজনৈতিক প্রতিশোধের একটি রূপ।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের সেক্রেটারি জেনারেল অ্যাগনেস ক্যালামার্ড বলেছেন, মুহাম্মদ ইউনূসের মামলা বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির প্রতীক, যেখানে কর্তৃপক্ষ স্বাধীনতা খর্ব করেছে এবং সমালোচকদের বশ্যতা স্বীকার করতে বুলডোজ করেছে। প্রতিহিংসা নিরসনে আইনের অপব্যবহার এবং বিচার ব্যবস্থার অপব্যবহার অসঙ্গতিপূর্ণ। এটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার চুক্তির সাথেও অসঙ্গতিপূর্ণ, যার মধ্যেঅসঙ্গত। ‘নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক চুক্তি’ এর  অন্তর্ভুক্ত। বাংলাদেশও সেই চুক্তির রাষ্ট্রপক্ষ। বিচারের নামে এই প্রতারণার অবসান ঘটানো সরকারের এখনই সময়।

  • প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রকাশ্যে মুহাম্মদ ইউনূসকে বেশ কয়েকবার আক্রমণ করেছেন, উল্লেখ করেছেন যে: ২০১১ সালে তিনি তাকে “গরিবের রক্ত চুষে” বলে   অভিযুক্ত করেছিলেন।
  • ২০২২ সালে, তিনি পদ্মা সেতু প্রকল্পের জন্য “তহবিল আটকানোর চেষ্টা করার” অভিযোগে তাকে পদ্মা নদীতে ফেলে দেওয়ার কথা বলেছিলেন।
  • অতি সম্প্রতি শেখ হাসিনা বলেছেন, “অনেক নোবেল বিজয়ী এখন কারাগারে” এবং “আইন চলবে তার নিজস্ব গতিতে”। এতে বোঝা যাচ্ছে ড. ইউনূসকেও কারাদণ্ড দেওয়া হতে পারে ।

মুহাম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে বিচার যে অস্বাভাবিক গতিতে চলছে তা বাংলাদেশের অন্যান্য শ্রম অধিকার-সংক্রান্ত মামলার সম্পূর্ণ বিপরীত। এর মধ্যে রয়েছে ২০২২ সালে বিএম কন্টেইনার ডিপো এবং ২০২১ সালে হাসেম ফুডস ফ্যাক্টরিতে আগুন লাগার ঘটনা। অভিযোগ রয়েছে যে, নিয়োগকর্তাদের অবহেলা এবং নিরাপত্তার মান না মেনে চলার কারণে প্রায় ১০০ জন কারখানা শ্রমিক মারা গিয়েছিল।  উভয় ক্ষেত্রেই, কোম্পানির মালিকদের কোনো ধরনের অপরাধমূলক দায়বদ্ধতার মুখোমুখি হতে শোনা যায় না। সামান্য ক্ষতিপূরণের  বিনিময়ে তাদের জবাবদিহিতা এড়ানো হয়েছে।

বাংলাদেশে কাজের অবস্থার উন্নতির জন্য কাজ করে এমন একটি এনজিও হল ‘সেফটি অ্যান্ড রাইটস সোসাইটি’। সংস্থার মতে, শ্রমিকদের পেশাগত নিরাপত্তা এখনও দূরের বিষয়। তারা ২০১৩ এবং ২০২২ এর মধ্যে ৪৭০০ জনেরও বেশি শ্রমিকের মৃত্যুর রেকর্ড করেছে।

অ্যাগনেস ক্যালামার্ড বলেন, মুহম্মদ ইউনূসের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ সরকারের নিরলস প্রচারণা দেখায় বর্তমান সরকার ৮৩ বছর বয়সী নোবেল বিজয়ীকে হয়রানি করে নজির স্থাপন করতে কতটা মরিয়া।

আরও পড়ুন

ড. ইউনূস এর বিরুদ্ধে বিবৃতিতে স্বাক্ষর না করায় ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে চাকরিচ্যুত করা হচ্ছেঃ খুলে ফেলা হলো তার নেমপ্লেটও

যারা শ্রমিক অধিকার লঙ্ঘন করে তাদের জবাবদিহি করতে হবে। কিন্তু, মুহাম্মদ ইউনূসকে হয়রানি করার জন্য শ্রম আইন এবং ফৌজদারি বিচারের অপব্যবহার না করে, কর্তৃপক্ষের উচিত শ্রম অধিকারের বৃহত্তর হুমকির বিরুদ্ধে লড়াই করার দিকে মনোনিবেশ করা, যেমন অনিরাপদ কারখানা, যা বাংলাদেশের হাজার হাজার শ্রমিকের জীবনকে ধ্বংস করে চলেছে।

ড. ইউনূসের বিরুদ্ধে মামলার প্রেক্ষাপট ব্যাখ্যা করে অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল বলছে: মামলায় গ্রামীণ টেলিকম কোম্পানির নাম নেই। এতে তার সাথে সবচেয়ে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত শুধুমাত্র তিনজন পরিচালকের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, যে মামলাটি রাজনৈতিকভাবে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং ইউনূসকে হয়রানি ও ভয় দেখানোর লক্ষ্যেই পরিচালিত হচ্ছে । অভিযুক্ত পরিচালকদের কেউই কোম্পানির দৈনন্দিন কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে সক্রিয়ভাবে নিয়োজিত ছিলেন না।  বাংলাদেশে মুহাম্মদ ইউনূস এবং অন্যান্য ভিন্নমতের কণ্ঠকে হয়রানি ও ভয় দেখানোর বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে ৫ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ -এ, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার একটি বিবৃতি জারি করে।

    1 Comment

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X