May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
ইন্টারনেটে শিক্ষার্থীদের ভয়ানক আসক্তি: বিশেষ করে পর্ন সাইটের প্রতি

ইন্টারনেটে শিক্ষার্থীদের ভয়ানক আসক্তি: বিশেষ করে পর্ন সাইটের প্রতি

ইন্টারনেটে শিক্ষার্থীদের ভয়ানক আসক্তি: বিশেষ করে পর্ন সাইটের প্রতি

ইন্টারনেটে শিক্ষার্থীদের ভয়ানক আসক্তি: বিশেষ করে পর্ন সাইটের প্রতি

টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) এ পর্যন্ত দেশে ২২,০০০ নিষিদ্ধ পর্ন সাইট বন্ধ করেছে। নজরদারির অধীনে আছে আরো হাজার হাজার সাইট সেগুলোও পর্যায়ক্রমে বন্ধ করা হবে। এছাড়াও যেসব গেটওয়ে দিয়ে পর্ন সাইট দেখা হয় সেগুলো বন্ধ করার বিষয়েও কাজ করছে। তবে এত কিছুর পরও বাকি পর্ণ সাইটগুলোতে ছাত্রছাত্রীরা ভয়ানকভাবে আসক্ত থাকে।

এদিকে, যদিও পর্নো সাইটগুলি নিয়মিত গেটওয়েতে ব্লক করা হয়, পর্ণ সাইটগুলি ব্যক্তিগত নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) এবং মিররওয়েতেও দেখা যায়৷ আর এই পর্নো সাইটে সবচেয়ে বেশি আসক্ত স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। এই সাইটগুলির বেশিরভাগই মোবাইল ফোনের মাধ্যমে দেখা হয়। একদিকে শিশুরাও পর্ন দেখার ফলে অপরাধী হয়ে উঠছে।

বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র বলেন, আমরা প্রায় ২২ হাজার পর্নোগ্রাফি সাইট বন্ধ করেছি। বিষয়টি নজরদারিতে রয়েছে। শুনেছি তারা নতুন ফরম্যাটে হাজির হচ্ছে। তবে  আমাদের পাঠানো লিঙ্ক ব্লক করা হবে।

বিভিন্ন গবেষণা সূত্র অনুসারে, নিয়মিত গেটওয়ে যেমন গুগল ক্রোম, মজিলা ফায়ারফক্স বা ই-মেইল সাধারণত পর্ণ সাইটগুলিতে অ্যাক্সেসযোগ্য নয়। তাদের সঙ্গে প্রায় ২২ হাজার পর্ন সাইট ব্লক করা হয়েছে। যাইহোক, কেউ যদি VPN কানেক্ট করে, তাহলে গুগল ক্রোম বা ফায়ারফক্স গেটওয়ের মাধ্যমে সহজেই পর্ণ সাইটগুলি অ্যাক্সেস করতে পারবেন। আর এ কারণে আত্মীয়-স্বজন বা বন্ধু-বান্ধবের কৌতূহলের বশে শিশুদের মধ্যে পর্নোগ্রাফি দেখার প্রবণতা বাড়ছে।

গবেষণায় দেখা গেছে যে ৭৫.১ শতাংশ শিশু যাদের মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট সংযোগ রয়েছে তারা পর্নোগ্রাফি দেখছে। ২৬ শতাংশ মেয়ে বলেছে যে তারা আত্মীয়দের সাথে পর্নোগ্রাফি দেখে। ১৪.৪  শতাংশ মেয়ে এটি আত্মীয়দের সাথে দেখেছে।

মনোবিশ্লেষকরা বলছেন, কম বয়সে পর্নোগ্রাফি দেখা শিশুদের সহিংসতাসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধের প্রবণতা তৈরি করতে পারে। অভিভাবকদের সতর্কতা এবং শিশুবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমেই শিশুকে এই ভয়াবহতা থেকে রক্ষা করা সম্ভব।

উল্লেখ্য,  রাজধানীর কলাবাগানে বন্ধুর বাসায় বেড়াতে গিয়ে বিকৃত যৌন মিলনের কারণে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ‘ও’ লেভেলের ছাত্রী আনুশকা নূর আমিন মারা যান। পরে বিভিন্ন গণমাধ্যম থেকে জানা যায়, মূলত পর্নোগ্রাফি সাইটে আসক্ত হওয়ার কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে।

পর্নোগ্রাফিতে শিশুদের প্রবেশের মাত্রা কী, এক জরিপে উদ্বেগজনক তথ্য উঠে এসেছে। বেসরকারি সংস্থা ইনসিডিন বাংলাদেশ পরিচালিত জরিপে শিশুদের প্রতি সহিংসতার নানা চিত্র তুলে ধরা হয়েছে। গবেষণা পরামর্শ দেয় যে আক্রমণাত্মক এবং হিংসাত্মক আচরণের পিছনে অনেকগুলি সুপ্ত কারণ রয়েছে। আর এসব কারণের মধ্যে পর্নোগ্রাফির আসক্তি সবচেয়ে বেশি।

২০১৭ সালে, ফাউন্ডেশন ফর হিউম্যানিটির একটি জরিপে দেখা গেছে যে ঢাকার প্রায় ৭৭  শতাংশ স্কুল ছাত্র পর্নোগ্রাফি দেখে। অষ্টম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীতে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্যে জরিপটি চালানো হয়। দেখা যায় তারা ছবি, ভিডিও, অডিও এবং টেক্সট আকারে পর্নোগ্রাফি ব্যবহার করে। সমীক্ষায় জানা গেছে, শিক্ষার্থীরা মূলত মোবাইল ফোনে অনলাইনে পর্নোগ্রাফি দেখে।

ফাউন্ডেশন ফর হিউম্যানিটির এক জরিপে আরও কিছু জানা গেছে। দেখা যায়, দেশে এর প্রবণতা বাড়ছে। টেক্সট, ছবি ও ভিডিওর পাশাপাশি সেক্স টেক্সটের অডিও তৈরি করে অনলাইনে প্রকাশ করা হচ্ছে।

মনোবিশ্লেষকরা বলছেন, শিশুকে যেকোনো ধরনের অত্যাচার থেকে দূরে রাখতে সবার আগে তাকে নীরবতা ভাঙতে দিতে হবে। বেশিরভাগ সময় যখন শিশু তার পরিস্থিতি সম্পর্কে পিতামাতাকে বলে তখন তাকে চুপ থাকতে বলা হয়। সেটা না করে শুরু থেকেই শিশুকে শেখানো উচিত কী খারাপ। কোন জিনিসগুলি তাকে অনিরাপদ করে তুলতে পারে তাও তাকে বলা উচিত। এই প্রাথমিক পাঠ অভিভাবক দ্বারা দেওয়া যেতে পারে।

জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক তাজুল ইসলাম বলেন, শিশুর মানসিক স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে কাউন্সেলিং-এর ব্যবস্থা করতে হবে। সন্তান যেন খারাপ পরিস্থিতিতে না যায় সেদিকে অভিভাবকদের সতর্ক থাকতে হবে। শিশুরা যাতে দীর্ঘ সময় অপরিচিত ব্যক্তির সাথে একা না থাকে সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে। শিশুদের মোবাইল ফোন দেওয়ার ব্যাপারে থাকতে হবে।

আইন কী বলে: পর্নোগ্রাফি কন্ট্রোল অ্যাক্ট ২০১২ বলে যে পর্নোগ্রাফি হল (১) যে কোনও অশালীন সংলাপ, কাজ, অঙ্গভঙ্গি, নগ্ন বা অর্ধ-নগ্ন নৃত্য যা যৌন উত্তেজক, ধারণ করা এবং ফিল্ম, ভিডিও চিত্র, অডিও ভিজ্যুয়াল যা  ছবিতে প্রদর্শিত হয়। ছবি, গ্রাফিক্স বা অন্যথায় এবং যার কোন শৈল্পিক বা শিক্ষাগত মূল্য নেই। এটি যৌন উত্তেজক অশ্লীল বই, সাময়িকী, ভাস্কর্য, মূর্তি, কার্টুন বা লিফলেটকে  অন্তর্ভুক্ত করে।

আরও পড়ুন

বেকার আর নারী এই দুই শ্রেণী ইন্টারনেট ব্যবহার করেন বেশি

কী বলছে নেট দুনিয়া

পর্নোগ্রাফি আইন পর্নোগ্রাফি উৎপাদন, বিতরণ, বিক্রয় এবং ব্যবহারের জন্য পৃথক শাস্তি প্রদান করে। সর্বনিম্ন শাস্তি দুই বছর এবং সর্বোচ্চ সাত বছরের কারাদণ্ড। আর্থিক জরিমানার বিধানও রয়েছে। পর্নোগ্রাফি তৈরির সরঞ্জাম, প্রচারের সরঞ্জাম বা মিডিয়া বাজেয়াপ্ত করার বিধানও রয়েছে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সম্প্রতি সাংবাদিকদের বলেছেন, তিনি বাংলাদেশের সব মানুষের জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করতে চান। আর তিনি বলেন অশ্লীলতার বিরুদ্ধে আমার জিহাদ।

মন্ত্রী অভিযোগ করেছেন যে টিকটক এবং বিগোর মতো সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপগুলি অপব্যবহার করা হচ্ছে। তিনি বলেন, বন্ধ হওয়া অধিকাংশ ওয়েবসাইট বিদেশি। কিন্তু কিছু স্থানীয় এবং সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যারা এই ফাঁদে পড়েছে।

হাইকোর্ট ছয় মাসের মধ্যে পর্নোগ্রাফি ওয়েবসাইট বন্ধ এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে অশ্লীল সামগ্রী অপসারণের নির্দেশ দেওয়ার পর সরকার এই উদ্যোগ নেয়।

একটি নাগরিক সংস্থার আবেদনের পরে আদালত থেকে এই আদেশ আসে। বড় সংখ্যক প্রাপ্তবয়স্কদের ওয়েবসাইট একেবারেই নজরদারি করা হচ্ছে না বলে অভিযোগে বলা হয়েছে। কিন্তু সেগুলো অশ্লীল উপাদানে ভরপুর।

মন্ত্রী বলেন, আমরা স্থানীয় ফেসবুক প্রোফাইল, ইউটিউব চ্যানেল ও ওয়েবসাইট পর্যবেক্ষণ করছি।

এর মধ্যে কয়েকটি অশ্লীল বিষয়বস্তুর কারণে বন্ধ করা হয়েছে। এছাড়াও কয়েকজনকে বলা হয়েছে, আমাদের সামাজিক নিয়মের বাইরে, আর কোনো পোস্ট না করতে।

বাংলাদেশের প্রায় ৫ কোটি মানুষ  ইন্টারনেট ব্যবহার করে। পর্ন তারকারা নিয়মিত ইন্টারনেট অনুসন্ধান তালিকার তাদের সামনে শীর্ষে উপস্থিত হন।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক বলেন, তারা সরকারের নির্দেশনা মেনে চলছেন। কিন্তু অনেকেই ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক (ভিপিএন) বা মিরর ওয়েবসাইট ব্যবহার করে অনলাইন পর্নো সাইটগুলি অ্যাক্সেস করছে৷

তিনি বলেন, এটা একটা ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। তাই এ ক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণ করা জরুরি। কারণ এই ওয়েবসাইটগুলো নীতি সচেতন। প্রতি সপ্তাহে তারা কয়েক হাজার মিরর সাইটের সাথে ইন্টারনেট ব্যবহার করে।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X