১৫ মাসে স্পিনিং মিলের লোকসান ৪৫ হাজার কোটি টাকা

১৫ মাসে স্পিনিং মিলের লোকসান ৪৫ হাজার কোটি টাকা

১৫ মাসে স্পিনিং মিলের লোকসান ৪৫ হাজার কোটি টাকা

১৫ মাসে স্পিনিং মিলের লোকসান ৪৫ হাজার কোটি টাকা

গত ১৫  মাসে (জানুয়ারি ২০২২-মার্চ ২০২৩) দেশের স্পিনিং মিলগুলি প্রায় চার বিলিয়ন মার্কিন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪৫,০০০ কোটি টাকার বেশি) আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। উৎপাদিত সুতা কম দামে বিক্রি ও অতিরিক্ত গ্যাস বিল পরিশোধ করায় এ ক্ষতির মুখে পড়তে হচ্ছে মিলগুলোকে। মঙ্গলবার বাংলাদেশ টেক্সটাইল মিলস অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএমএ) সভাপতি মোহাম্মদ আলী খোকন এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, শ্রমিকদের বেতন-ভাতা নিয়মিত পরিশোধের পাশাপাশি ইউটিলিটি বিল নিয়মিত পরিশোধ করতে স্পিনিং মিলগুলো তাদের উৎপাদন অব্যাহত রাখতে এবং উৎপাদন খরচের চেয়ে ১৮ কমে  সুতা বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছে।

এতে, গ্যাস ব্যবহার না করেও নির্দিষ্ট গ্যাসের ট্যারিফে দেওয়া গ্যাস বিলের কারণে প্রতিটি মিলকে বছরে গড়ে প্রায় ৩৬ কোটি টাকার অতিরিক্ত বিল দিতে হবে। আন্তর্জাতিক বাজার থেকে টেকসই দামে তুলা আমদানি, নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহের অভাবে উৎপাদন ক্ষতি, গ্যাস ব্যবহার না করে অতিরিক্ত গ্যাস বিল এবং অতিরিক্ত জামানত প্রদানের কারণে আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে স্পিনিং মিলগুলো। ‘বস্ত্র খাতে বিদ্যমান সমস্যা ও উত্তরণ’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনে বিটিএমএ বোর্ডের সদস্যরা ছাড়াও এ খাতের উদ্যোক্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ আলী খোকন বলেন, রপ্তানি উন্নয়ন তহবিলের (ইডিএফ) অনিয়মিত বরাদ্দ, ইডিএফ ঋণের পরিমাণ হ্রাস এবং প্রয়োজনীয় ডলারের অভাবে কাঁচা তুলা আমদানিতে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর এলসি না খোলায় সমস্যা হচ্ছে। গত এক বছর ধরে এই তহবিল থেকে সংশ্লিষ্ট মিলের অনুকূলে ঋণ বরাদ্দ অনিয়মিত হওয়ায় প্রতিটি স্পিনিং মিলের জন্য এই তহবিলের আকার ৩ কোটি ডলার থেকে কমিয়ে ২০ মিলিয়ন ডলার করা হয়েছে। তিনি বলেন, ঋণের পরিমাণ কমে যাওয়ায় মিলগুলো তাদের পূর্ণ উৎপাদন ক্ষমতা ব্যবহার করতে প্রয়োজনীয় পরিমাণ কাঁচামাল অর্থাৎ তুলা আমদানি করতে পারছে না।

অর্থাৎ, মিলগুলির একটি উল্লেখযোগ্য অংশ শুধুমাত্র কাঁচামালের অভাবে উৎপাদন ক্ষমতার বাইরে থেকে যায়, যা উৎপাদন খরচ বাড়িয়ে দেয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশের বস্ত্র শিল্প গভীর ষড়যন্ত্রের সম্মুখীন। বর্তমানে ঘরে ঘরে পাকিস্তানি পোশাক। সরকার ২০৩০ সালের মধ্যে বস্ত্র ও পোশাক থেকে ১০০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। তবে খাতের এই নাজুক অবস্থা চলতে থাকলে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করা সম্ভব হবে না।

তিনি বলেন, করোনা-পরবর্তী সময় থেকে আমাদের মিলগুলো ঈদুল ফিতরের বাজার ফিরে পাবে বলে আশা করা হচ্ছিল। তবে ডলারের তীব্র সংকট থাকা সত্ত্বেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী বন্ডেড ওয়্যার হাউসের মাধ্যমে নগরীর বড় বড় শপিংমলগুলোতে অবাধে আমদানি করা বিদেশী সুতা বিক্রি করছে, যা স্থানীয় মিলগুলোর অবস্থাকে সংকটে ফেলেছে। পাকিস্তান ছাড়াও প্রতিবেশী দেশ ভারত ও চীন থেকে সুতা ও কাপড়সহ বিভিন্ন পোশাক সামগ্রী বিভিন্ন শহরে অবাধে বিক্রি হচ্ছে। ঢাকার বিক্রমপুর প্লাজা, নারায়ণগঞ্জ, আড়াইহাজার, গাউসিয়া, মাধবদী, নরসিংদী, ইসলামপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার।

প্রাইমারি টেক্সটাইল সেক্টরে ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ ইন্ডাস্ট্রি, যা দীর্ঘ সময় ধরে গড়ে উঠেছে, আজ অস্তিত্ব সংকটে। বিদ্যুৎ ও গ্যাসের নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর সময় বলা হয়েছিল শিল্পে নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস ও বিদ্যুৎ থাকবে, কিন্তু আমরা পাইনি। আমাদের সদস্য মিলগুলির অধিকাংশই ভারী শিল্প এবং পুঁজি নিবিড়। সেক্টরটি অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি দিয়ে পরিচালিত হয়। মানসম্মত ডাইং-প্রিন্টিং-ফিনিশিং পণ্য, সুতা ও কাপড়ের ফিনিশিং-এর জন্য মিলগুলোকে ক্রমাগত চালু রাখতে হবে। তিনি বলেন, সরকার নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে পারেনি। তাই আমরা ক্যাপটিভ পাওয়ার জেনারেশনকে উৎসাহিত করি।

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X