May 25, 2024

Warning: Undefined array key "tv_link" in /home/admin/web/timetvusa.com/public_html/wp-content/themes/time-tv/template-parts/header/mobile-topbar.php on line 53
বিয়ের জন্য বেঁচে গেল যে গ্রামের সবাই

বিয়ের জন্য বেঁচে গেল যে গ্রামের সবাই

বিয়ের জন্য বেঁচে গেল যে গ্রামের সবাই

বিয়ের জন্য বেঁচে গেল যে গ্রামের সবাই

গত শুক্রবার উত্তর আফ্রিকার দেশ মরক্কোতে ৬ দশমিক ৮ মাত্রার একটি ভয়াবহ ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। এই ভূমিকম্পে এখন পর্যন্ত প্রায় তিন হাজার মানুষ নিহত হয়েছে। যারা মারা গেছে তাদের বেশির ভাগই ধসে পড়া বাড়ির নিচে চাপা পড়েছে।

কিন্তু একটি ভিন্ন ঘটনা ঘটেছে আদাসিল অঞ্চলের ইঘিল এনটাগোমোট গ্রামে, যেটি কেন্দ্রের খুব কাছাকাছি। ভূমিকম্পে গ্রামের প্রায় সব বাড়ি ভেঙে পড়লেও প্রাণে বেঁচে যান সবাই।

গ্রামবাসীরা বিয়ের আগে কনের বাড়িতে যাওয়ার সময় ভূমিকম্প হয়। সেখানে খোলা জায়গায় তারা স্থানীয় সঙ্গীত ও অন্যান্য অনুষ্ঠান উপভোগ করছিলেন। আর তখনই প্রবল ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠে পুরো গ্রাম।

এ সময় বিয়ে বাড়িতে অনেকেই মোবাইল ফোনে ভিডিও রেকর্ড করছিলেন। ওই মোবাইল ফোনে উঠে আসে ভূমিকম্পের বিষয়টি। এ সময় আমন্ত্রিত অতিথিদের ভয়ে চিৎকার ও চিৎকার শোনা যায়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত একজন অতিথি ভূমিকম্পের আগে থেকেই ভিডিও তৈরি করছিলেন। ভিডিওতে দেখা যায়, দেশের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে বাঁশি ও ছাগলের চামড়ার ড্রাম বাজিয়ে সঙ্গীতশিলদ্যান সঙ্গীত পরিবেশন করছেন। । কিন্তু আচমকাই সেখানে লোকজনের চিৎকার-চেঁচামেচি শুরু হয়।

উল্লেখ্য,  মরক্কোতে শতাব্দীর সবচেয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা প্রায় ৩০০০ ছুঁয়েছে। আহতের সংখ্যা আড়াই হাজার ছাড়িয়েছে।

সোমবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিধ্বংসী ভূমিকম্পের পর মরক্কোর বিভিন্ন অঞ্চলের গ্রামবাসীরা পরপর চতুর্থ রাত কাটিয়েছেন বলে জানা গেছে।

দেশটিতে আঘাত হানার সবচেয়ে বড় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা বাড়ছে এবং সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী এটি প্রায় ৩০০০ জনে পৌঁছেছে। এছাড়াও, স্পেন, ব্রিটেন এবং কাতারের অনুসন্ধান দলগুলি নিহতদের সহ জীবিতদের খুঁজে বের করার জন্য মরক্কোর প্রচেষ্টায় যোগ দিয়েছে।

সোমবার মধ্যরাতে, মরক্কোর রাষ্ট্রীয় টিভি জানিয়েছে যে ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা বেড়ে২৮৬২ হয়েছে এবং আহতের সংখ্যা ২৫৬২ -এ দাঁড়িয়েছে। এছাড়া, ভূমিকম্প কবলিত অধিকাংশ এলাকা দুর্গম হওয়ায় দেশটির কর্তৃপক্ষ নিখোঁজের পরিসংখ্যান প্রকাশ করেনি।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার স্থানীয় সময় রাত ১১টা ১১ মিনিটে মরক্কোর মধ্যাঞ্চলে ৬ দশমিক ৮ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে। এর উৎস ছিল মারাকেশ শহর থেকে৭১  কিলোমিটার দূরে আটলাস পর্বত এলাকায় ১৮.৫  কিলোমিটার গভীরে। ১৯৬০ সালের পর এটিকে দেশের সবচেয়ে মারাত্মক ভূমিকম্প বলা হয়।

ভূমিকম্পের পরের দিন, শনিবার ছিল ৩০ বছর বয়সী মোহাম্মদ বাওদাদ এবং ২২ বছর বয়সী হাবিবা আজদিরের বিয়ের দিন। আর সেখানকার রীতি অনুযায়ী বিয়ের আগের দিন কনের বাড়িতে প্রি-ওয়েডিং অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সেই বিয়ের আয়োজনই সৌভাগ্যবশত তাদের ভয়ানক বিপদ থেকে রক্ষা করেছিল।

মরক্কোর ৬০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ ভূমিকম্প। ভূমিকম্পে গৃহহীন হয়ে পড়েছে বিপুল সংখ্যক মানুষ।

ভূমিকম্পে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ঐতিহাসিক মারাকেশ অঞ্চল। ভূমিকম্পে এখানকার অনেক ঐতিহাসিক স্থাপনা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল তাফেঘাঘটে পাহাড়ি গ্রাম। কার্যত একটি বিল্ডিং এখন এখানে দাঁড়িয়ে আছে।  এ অঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী বারবার উপজাতি মাটির ঘর তৈরি করত।

ছয় দশকের মধ্যে মরোক্কোতে আঘাত হানা সবচেয়ে ভয়াবহ ভূমিকম্পটি এতটাই শক্তিশালী ছিল যে আটলাস পর্বতমালা থেকে মাত্র কয়েক কিলোমিটার দূরে তিখত গ্রামটি রাতারাতি নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। যেদিকে তাকাই, সেখানে শুধু ধ্বংসস্তূপ আর শোকাহতদের আর্তনাদ, আর্তনাদ। কিন্তু শুক্রবার পর্যন্ত ওই গ্রামে মানুষ ঘুরে বেড়াত। শিশুরা রাস্তায় খেলা করছিল। শুক্রবার রাতের ভূমিকম্পের পর ওই গ্রামের একটি বাড়িও অক্ষত নেই। ধ্বংসস্তূপের মধ্যে কেউ তার স্ত্রী-পুত্র-স্বামীকে খুঁজছে, আবার কেউ তার বাবা-মাকে খুঁজছে। কারো প্রেমিক।

মিডিয়া রিপোর্ট অনুযায়ী, তিখাত গ্রামে অন্তত ১০০ টি পরিবার বাস করত। কিন্তু সেই গ্রাম এখন ভাঙা ইট, কাঠ, পাথর, ছেঁড়া কাপড় ও ছেঁড়া জুতার স্তূপ।

তিখাতের বাসিন্দা ৩০ বছর বয়সী মহসিন আকসুম গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের গ্রাম শেষ। আমাদের সাজানো গোছানো গ্রামটিও মারা গেছে অসংখ্য মানুষের সাথে।

২৩ বছর বয়সী ছাত্র আবদেল রহমান এডজাল, তার বাড়ি এবং বাবাকে হারিয়ে বিধ্বস্ত। পাথরের ওপর বসে তিনি বললেন, ‘এরকম ভূমিকম্প হয়েছে বলে কারও মনে নেই। বাড়ি তৈরির সময় গ্রামের মানুষ এতটা ভাবেননি। কিন্তু শুক্রবার রাতে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বাড়িগুলো।

তিনি বলেন, রাতে যখন কম্পন অনুভূত হয় তখন অনেকেই ঘুমিয়ে ছিলেন। ভূমিকম্পে প্রায় সব ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়ে গেছে। ধ্বংসস্তূপের নিচে বহু মানুষ মারা গেছে। গত ৬০ বছরে, মরক্কো এত ভয়ানক প্রাকৃতিক দুর্যোগের সম্মুখীন হয়নি।

ব্রিটেনের ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের ইমেরিটাস প্রফেসর বিল ম্যাকগুয়ার বলেন,যেসব এলাকায় ধ্বংসাত্মক ভূমিকম্প হয় , সেখানে ভবনগুলো যথেষ্ট মজবুত হয় না। এবং যখন একটি শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত করে, তখন ভবনগুলি সহজেই ধসে পড়ে এবং অসংখ্য হতাহতের ঘটনা ঘটে। এমনটাই ঘটেছে মরক্কোতে।

এই ভয়াবহ ভূমিকম্পে মরক্কোর প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা। অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি)ও শোক প্রকাশ করেছে।

আরও পড়ুন

ইসরায়েলসহ সকল ভূমিকম্পের জন্য সমকামীরা দায়ী: ইহুদি প্রধান ধর্মগুরু রাব্বি শ্লোমো আমর

তুরস্ক ও সিরিয়ায় ভূমিকম্পঃ নিহতের সংখ্যা ৫০ হাজারেরও বেশি

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    X